Breaking

Translate

Monday, 25 March 2019

প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ ২০১৮ সার্কুলার | প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা 2019 ১৫ই এপ্রিল

প্রাথমিক_শিক্ষক_নিয়োগ_সার্কুলার

প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ ২০১৮ সার্কুলার,প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়া,প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ যোগ্যতা, প্রাথমিক শিক্ষকদের বেতন,প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা 2019 ইত্যাদি সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে সমকাল ব্লগে।


প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ ২০১৮ সার্কুলার




প্রাথমিক সহকারী শিক্ষক নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ২০১৮ প্রকাশিত হয়েছিল ৩০শে জুলাই ২০১৮।আবেদন করার সময় ছিলো ১লা আগস্ট থেকে ৩০শে আগস্ট ২০১৮ পর্যন্ত।এবার প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষার জন্য রেকর্ড সংখ্যক ২৪ লাখ ১ হাজার ৫৯৭ জন প্রার্থী আবেদন করেছেন।অথচ প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ২০১৮ অনুযায়ী শিক্ষক নিয়োগ করা হবে সে তুলনায় মাত্র ১২০০০!এ থেকেই বোঝা যাচ্ছে কিরকম প্রতিযোগিতামূলক হতে যাচ্ছে প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ ২০১৮।

এদিকে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মোঃ জাকির হোসেনের দেয়া এক বক্তব্যে জানা গেছে এবছর অর্থাৎ ২০১৯ সালেই আবারও নিয়োগ দেয়া হবে ২০ হাজার প্রাথমিক সহকারী শিক্ষক।প্রাক প্রাথমিক শ্রেণীতে ভর্তির বয়স ৫ বছর থেকে কমিয়ে ৪ বছর করা হবে এবং প্রাক প্রাথমিক শ্রেণীর মেয়াদ হবে ২ বছর।এজন্যই নিয়োগ দেয়া হবে আরো বিশ হাজার প্রাক প্রাথমিক শিক্ষক।প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ সার্কুলার ২০১৯ প্রকাশিত হওয়ার সাথে সাথেই যত দ্রুত সম্ভব তা জানিয়ে দেয়া হবে সমকাল ব্লগের পাঠকদের।

জানা গেছে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শূন্যপদে আরও ১৭ হাজার শিক্ষক নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি দেয়া হতে পারে মার্চেই।এর মধ্যে প্রাক-প্রাথমিক পর্যায়ে ১০ হাজার ও সহকারী শিক্ষক পদে ৭ হাজার শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হবে।

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব গিয়াসউদ্দিন আহমেদ এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন বলে জানা গেছে।এ সংক্রান্ত প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করতে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরকে (ডিপিই) ইতোমধ্যেই নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।বিশেষ কোনো জটিলতা সৃষ্টি না হলে মার্চেই নতুন নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হতে পারে।

প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ প্রত্যাশীদের জন্য সুখবর হলো প্রাথমিক ও গণশিক্ষা সচিব সম্প্রতি জানিয়েছেন আগামী ৫ বছরে আরো ১ লক্ষ শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হবে।আগামী ২০২০ সাল থেকেই দুই বছর মেয়াদী প্রাক প্রাথমিক শিক্ষা চালু করার প্রত্যাশা ব্যাক্ত করেছেন তিনি।সচিব মহোদয় আরো জানিয়েছেন বর্তমানে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষক এবং শিক্ষার্থীর অনুপাত ১:৩৬।আরো এক লাখ শিক্ষক নিয়োগ করা হলে এ অনুপাত ১:৩০ এ নামিয়ে আনা যাবে।উল্লেখ্য গত দশ বছরে ১ লক্ষ ৮০ হাজার প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ করা হয়েছে।

হিসেব করলে দেখা যায় প্রতি আবেদনকারীর নিকট থেকে ১৬৮ টাকা করে আদায় করায় প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি 2018 থেকে সরকারের তথা প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের আয় হয়েছে ৪১ কোটি টাকার কাছাকাছি!

প্রাইমারি শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা ২০১৯




প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষার তারিখ ২০১৯ প্রকাশিত হয়েছে।প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা কবে হবে তা জানিয়েছে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর।তারিখ প্রকাশিত হওয়ার সাথে সাথেই তা এখানে জানিয়ে দেয়া হলো।

প্রথমে ২০১৮ সালের অক্টোবর মাসেই পরীক্ষা সম্পন্ন করার কথা থাকলেও অনিবার্য কারণবশত তা পেছানো হয়।অতিরিক্ত সংখ্যক প্রার্থী আবেদন করার কারণে পরীক্ষার আয়োজন নিয়ে হিমশিম খাচ্ছে কতৃপক্ষ।

এরপর ডিসেম্বরে পরীক্ষার সম্ভাবনার কথা থাকলেও সেটিও সম্ভব হয়নি। বলা হয়েছিলো জানুয়ারিতে হতে পারে প্রাইমারি শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা ২০১৯।

পরবর্তীতে প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা ২০১৯ এর তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছিলো ১লা ফেব্রুয়ারিতে।

এরপর  প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নিয়োগ সংক্রান্ত কমিটির সভায় সিদ্ধান্ত হয় যে প্রাথমিক সহকারি শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে ১৫ই মার্চ ২০১৯।ফেব্রুয়ারিতে এসএসসি পরীক্ষা থাকায় পুনরায় পিছানো হয় পরীক্ষার সময়।বলা হয়েছিল ফেব্রুয়ারীর প্রথম সপ্তাহেই সিদ্ধান্ত হবে কোন জেলায় কবে পরীক্ষা নেয়া হবে।

এদিকে দুঃখজনকভাবে আবারও পিছানো হয় প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা।১৫ই মার্চ প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা নেয়ার সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করলেও পরীক্ষা নিতে পারেনি প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রনালয়।প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর dpe জানায় ১৩ই মার্চ প্রাথমিক শিক্ষা সপ্তাহ উদ্বোধন করা হবে।এজন্য সকল প্রস্তুতি থাকা সত্ত্বেও প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা নেয়া সম্ভব হচ্ছেনা ১৫ই মার্চ।তবে কখন পরীক্ষা নেয়া হবে তাও সুনির্দিষ্টভাবে বলতে পারেনি প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর।ধারণা করা হচ্ছিল মার্চের শেষে অথবা এপ্রিলের শুরুতে হতে পারে প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা ২০১৮।

অবশেষে ঘোষণা করা হলো প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা 2019 অনুষ্ঠিত হবে ১৫ই এপ্রিল ২০১৯।

সাধারণত পরীক্ষার প্রশ্ন প্রণয়ন এবং পরীক্ষা পরিচালনার দায়িত্ব থাকে ডিপিই এর উপর।এবার প্রশ্ন ফাঁস রোধ করার জন্য পরীক্ষা সংক্রান্ত সকল বিষয় পরিচালনা করা হবে সরাসরি প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে।এদিকে প্রশ্নপত্র প্রণয়ন,ওএমআর শীট ডিজাইন এবং মূল্যায়ন,পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ সংক্রান্ত টেকনিক্যাল বিষয়গুলো নিয়ে বুয়েটের সাথে মিটিং করেছে মন্ত্রণালয়।জানা গেছে এবার ২০টির অধিক প্রশ্ন সেটে পরীক্ষা নেয়া হতে পারে।এছাড়া অধিক সংখ্যক পরীক্ষার্থী আবেদন করায় পূর্বের চেয়ে কেন্দ্রের সংখ্যাও বাড়ানো হবে।

প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ ২০১৯ প্রক্রিয়া




প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর জানিয়েছে এবার সহকারী শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়ায় বেশকিছু পরিবর্তন হতে যাচ্ছে।এতো অধিক সংখ্যক আবেদনকারীর মধ্য থেকে শুধু এমসিকিউ প্রশ্নের মাধ্যমে যোগ্য শিক্ষক বাছাই করা সম্ভব নয়। এজন্য প্রথমে এমসিকিউ পরীক্ষার মাধ্যমে ৫০ হাজার প্রার্থীকে পরীক্ষায় উত্তীর্ণ করা হবে। এরপর পিএসসির আদলে লিখিত পরীক্ষার মাধ্যমে ৩৬ হাজার প্রার্থীকে মৌখিক পরীক্ষার জন্য নির্বাচিত করা হবে। 

প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ যোগ্যতা

প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক হিসেবে আবেদনের যোগ্যতা ২০১৩ সালের নীতিমালা অনুযায়ী আগের মতোই থাকছে।অর্থাৎ পুরুষদের জন্য ন্যুনতম গ্র্যাজুয়েট এবং নারীদের জন্য এইচএসসি পাশ।আগের মতোই ৬০% নারী কোটাও বহাল রয়েছে।তবে আগামী বিজ্ঞপ্তি হতে পরিবর্তন ঘটবে এ নিয়মের!আগামীতে নারী পুরুষ উভয়ের জন্যই ন্যুনতম শিক্ষাগত যোগ্যতা গ্র্যাজুয়েট নির্ধারণ করা হবে।


প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগের প্রবেশপত্র ডাউনলোড

পরীক্ষার সুনির্দিষ্ট তারিখ নির্ধারিত হওয়ার পরপরই প্রত্যেক আবেদনকারীর নিকট এসএমএস দিয়ে তা জানিয়ে দেয় কতৃপক্ষ।তখন নিচের ওয়েবসাইট থেকে প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ প্রবেশপত্র ডাউনলোড করা যাবে।প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগের প্রবেশপত্র ছাড়া পরীক্ষা দেয়া সম্ভব নয়।সুতরাং পরীক্ষায় অংশগ্রহণের পূর্বে অবশ্যই আপনার আইডি এবং পাসওয়ার্ড দিয়ে অনলাইনে ডাউনলোড করে নিন প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষার প্রবেশপত্র।সাধারণত পরীক্ষার ১০ দিন আগে এসএমএস পাঠানো হয় পরীক্ষার্থীদের মোবাইল ফোনে।তখন থেকেই ডাউনলোড করা যায় পরীক্ষার প্রবেশপত্র।

প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষার ফলাফল ২০১৯





প্রাইমারি শিক্ষক নিয়োগ ২০১৯ রেজাল্ট প্রকাশিত হওয়ার সাথে সাথেই এখানে আপডেট দেয়া হবে।
কাজেই পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করার পর নিয়মিত চোখ রাখুন সমকাল ব্লগে।

প্রাথমিক শিক্ষকদের বেতন

প্রাথমিক শিক্ষকদের বেতন কত জানতে চান?বর্তমান বেতন স্কেল অনুযায়ী প্রশিক্ষণবিহীন প্রাথমিক সহকারী শিক্ষক ১৫তম গ্রেড অনুযায়ী ৯৭০০ টাকা স্কেলে বেতন পান এবং প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত প্রাথমিক সহকারী শিক্ষক ১৪তম গ্রেডে ১০২০০ টাকা স্কেলে বেতন পান।

তবে শীঘ্রই প্রাথমিক শিক্ষকদের দাবি অনুযায়ী গ্রেড পরিবর্তন করে বেতন বাড়ানোর প্রতিশ্রুতি পূরণ করছে সরকার।নতুন বিধিমালা অনুযায়ী সহকারী শিক্ষক পাবেন ১২তম গ্রেডে বেতন, আর প্রধান শিক্ষক পাবেন ১০ম গ্রেডে।শিক্ষক নিয়োগ বিধিমালা সংশোধন করে এই পরিবর্তন আনা হচ্ছে শীঘ্রই।

প্রাথমিক বিদ্যালয়ের হিসাব রক্ষক নিয়োগ

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে জানা গেছে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে হিসাব রক্ষক পদ তৈরির নীতিগত সিদ্ধান্ত হয়েছে।এজন্য প্রতিটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে একজন করে হিসাব রক্ষক নিয়োগ করা হবে।জানা গেছে চলতি অর্থ বছরেই সকল প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে সারা দেশে ৬৫ হাজার ৯৯টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জন্য হিসাব রক্ষক পদে নিয়োগ সার্কুলার প্রকাশ করা হবে।তবে এখনও এটি নীতিগত সিদ্ধান্তের পর্যায়ে আছে এজন্য আবেদনের যোগ্যতা ইত্যাদি বিস্তারিত জানা যায়নি।বিস্তারিত জানতে নিয়মিত চোখ রাখুন সমকাল ব্লগে।







No comments:

Post a Comment