Breaking

Translate

Monday, 18 November 2019

November 18, 2019

এনটিআরসিএ এর নতুন খবর ২০১৯ | শীঘ্রই আবার বেসরকারি শিক্ষক নিয়োগ

এনটিআরসিএ এর নতুন খবর

এনটিআরসিএ এর নতুন খবর ২০১৯, আবারও শিক্ষক নিয়োগের প্রস্তুতি

এনটিআরসিএ এর নতুন খবর ২০১৯ হলো গত ২৪শে ডিসেম্বর ২য় বারের মতো প্রকাশিত হয়েছিল নিবন্ধনকারীদের বহু আকাঙ্খিত ntrca শিক্ষক নিয়োগ সুপারিশ ২০১৮। এতে প্রায় ৪০ হাজার শিক্ষক নিয়োগ প্রাপ্ত হন। শীঘ্রই আবারও প্রকাশিত হবে বেসরকারি শিক্ষক নিয়োগের গণবিজ্ঞপ্তি। আরো বিস্তারিত জানতে NTRCA সংক্রান্ত আমাদের সবগুলো পোস্ট পড়ুন।
NTRCA থেকে বলা হয়েছিল ১ম চক্রের অর্থাৎ ২০১৬ সালের গণবিজ্ঞপ্তিতে কম্পিউটার শিক্ষক পদে ১০৪৮ জনকে নিয়োগের সুপারিশ করা হয়। এর মধ্যে যোগদান করেছেন ৩১৩ জন। বাকি প্রায় ৭০০ জনের নিয়োগের সুপারিশ করা হবে ২য় ধাপে। শীঘ্রই ১ম চক্রের আবেদন অনুযায়ী এ সুপারিশ করা হবে।



অবশেষে বিষয়টির নিষ্পত্তি হয়েছে আদালতের নির্দেশে। ৫৩২ টি শুন্যপদের বিপরীতে ৫১৪ জনকে সহকারি শিক্ষক (কম্পিউটার ) পদে নিয়োগ দিয়েছে এনটিআরসিএ। সেইসাথে এ সংক্রান্ত একটি নোটিশ প্রকাশিত হয় NTRCA এর অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে ৮ই মে ২০১৯ তারিখে।

এরপর ২য় চক্রের ২য় ধাপের নিয়োগের সুপারিশ হওয়ার কথা রয়েছে। ১ম ধাপে নিয়োগের সুপারিশ পেলেও অনেকেই কাজে যোগদান করেননি। কেন তাঁরা যোগদান করেননি তা খতিয়ে দেখছে এনটিআরসিএ। এরপরই ২য় চক্রের আবেদন অনুযায়ী শুন্য পদগুলোতে মেধাতালিকায় ২য় স্থানে থাকা প্রার্থীদের নিয়োগের সুপারিশ করার কথা রয়েছে।



গত ২৪শে ডিসেম্বর রাতে প্রকাশিত হয়েছে ২য় চক্রের গণবিজ্ঞপ্তির ফলাফল। এতে নিয়োগের সুপারিশ পাওয়া আবেদনকারীদের এসএমএসের মাধ্যমে ফলাফল জানিয়ে দেয়া হয়। আরো পড়ুন

এদিকে গত ২৭/০১/১৮ তারিখে দৈনিক শিক্ষা ডট কম এবং মানবজমিনের একটি খবরে এনটিআরসিএ চেয়ারম্যানের বরাত দিয়ে বলা হয় :
বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পুনরায় আরো ৬০০০০ শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হবে ২০১৯ সালেই।তবে এতে আবেদনকারীদের মধ্যে ১৫তম এবং ১৬তম নিবন্ধনকারীদেরও অন্তর্ভুক্ত করা হবে।ইতোমধ্যেই জেলা শিক্ষা অফিসের মাধ্যমে সারা দেশের ডিসেম্বর পর্যন্ত শুন্য পদের তালিকা সংগ্রহ করা হয়েছে।





২০১৮ সালের শেষের দিকে নাটকীয় ঘটনার মধ্যদিয়ে এনটিআরসিএ চেয়ারম্যান পরিবর্তন করা হয়! গত ১৬ই অক্টোবর জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের একটি আদেশের মাধ্যমে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সদস্য (বোর্ড প্রশাসন) এস এম আশফাক হোসেনকে এনটিআরসিএ 'র চেয়ারম্যান হিসেবে নিয়োগ দেয় সরকার।

বর্তমানে এনটিআরসিএ অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে চেয়ারম্যান হিসেবে অতিরিক্ত সচিব এস এম আশফাক হোসেনের নাম ও ছবি রয়েছে।

সম্প্রতি সমাপ্ত হওয়া ২য় চক্রের নিয়োগে প্রায় এক হাজার মহিলা কোটার পদ শুন্য থেকে যায়।এসব পদে পুনরায় বিশেষ নিয়োগের জন্য ৩য় চক্রের নিয়োগের গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত হওয়ার কথা রয়েছে অচিরেই। তবে এসব পদে শুধু মহিলারাই আবেদন করতে পারবেন।

এছাড়াও আরো ৫ হাজার পদ শুন্য থাকার কথা জানিয়েছে ntrca। এসব পদেও নিয়োগের জন্য ৪র্থ চক্রের নিয়োগ গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত হবে বলেছেন এনটিআরসিএ চেয়ারম্যান এমনটিই জানা গেছে একটি অনলাইন নিউজ পোর্টালে।এতে নারী পুরুষ সকল নিবন্ধনকারীই আবেদন করতে পারবেন।

যেসকল নিয়োগের কথা বলা হলো এগুলো ১ম থেকে ১৪তম নিবন্ধনকারীদের কথা বিবেচনা করেই করা হবে। এবং এসকল নিয়োগ ১৫ তম শিক্ষক নিবন্ধনের ফলাফল প্রকাশিত হওয়ার আগেই সম্পন্ন হওয়ার কথা রয়েছে।




এছাড়াও আরো বেশকিছু ntrca আপডেট নিউজ রয়েছে। সর্বশেষ খবরে জানা গেছে এনটিআরসিএ চেয়ারম্যান বলেছেন নতুন গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত হবে ২০২০ সালের জানুয়ারির প্রথমদিকে। এ লক্ষ্যেই কাজ করে যাচ্ছে NTRCA। আরো জানা গেছে বর্তমানে শুন্যপদ রয়েছে ১৫,০০০। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধানদের ই রেজিস্ট্রেশন চলছে। ই রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন হওয়ার পরে শুন্য পদের জন্য ই রিকুইজিশনের কাজ শুরু হবে। তখন শুন্য পদের প্রকৃত সংখ্যা জানা যাবে। এ বছরের মধ্যেই এসকল কাজ সম্পন্ন হওয়ার কথা রয়েছে।

কারা আগামী ৩য় চক্রের গণবিজ্ঞপ্তিতে আবেদন করতে পারবেন এমন প্রশ্নের উত্তরে এনটিআরসিএ চেয়ারম্যান দৈনিক শিক্ষা ডট কমের কাছে বলেছেন ১ম থেকে ১৫ তম শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের এ নিয়োগে আবেদনের সুযোগ দেয়া হবে।

সরকারের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী এনটিআরসিএতে যে কোনো ধরনের পরিবর্তন যদি নিবন্ধনকারীদের জন্য ইতিবাচক হয় তা সাদরে গ্রহণ করবে সকল নিবন্ধনকারী।
এনটিআরসিএ 'র নতুন চেয়ারম্যান এস এম আশফাক হোসেন
এনটিআরসিএ 'র চেয়ারম্যান





Sunday, 17 November 2019

November 17, 2019

NTRCA কতৃক বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়া ২০১৯

ntrca update news সর্বশেষ কি

ntrca update news সর্বশেষ কি জানতে চান? শিক্ষক নিয়োগ গণবিজ্ঞপ্তির সর্বশেষ খবর জানতে চান? এখন শোনা যাচ্ছে শুধু সহকারী শিক্ষকই নয় বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পিয়ন, সহকারী শিক্ষক এমনকি প্রধান শিক্ষক/অধ্যক্ষ সহ সকল শ্রেণীর কর্মকর্তা, কর্মচারী নিয়োগের সুপারিশ করবে ntrca। এনটিআরসিএ এর সকল  বিস্তারিত খবর জানতে সম্পূর্ণ প্রতিবেদনটি পড়ুন।

বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কতৃপক্ষ NTRCA এর বিরুদ্ধে নিবন্ধনকারীদের হাইকোর্টে করা রীট পিটিশনের রায় প্রকাশ হওয়ার পর রায় বাস্তবায়ন এবং বেসরকারি শিক্ষক নিয়োগের পদ্ধতি নিয়ে নিবন্ধনকারীদের মধ্যে চলছিলো নানারকম জল্পনা কল্পনা। সবার প্রশ্ন ছিলো রায় বাস্তবায়নে কিভাবে বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করবে NTRCA? কেউ কেউ নিয়োগে রীটকারীদের অগ্রাধিকার থাকবে বললেও রায় বিশ্লেষণে দেখা গেছে রায় সার্বজনীন হয়েছে অর্থাৎ নিয়োগের ক্ষেত্রে রীটকারী ননরীটকারী নির্বিশেষে  সকল নিবন্ধনকারীদের সমানভাবে একটি সমন্বিত জাতীয় মেধাতালিকার ভিত্তিতে নিয়োগ দেয়া হবে বলে হাইকোর্টের রায়ে উল্লেখ করা হয়েছে। এবং শেষ পর্যন্ত বিগত শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়া সেভাবেই সম্পন্ন হয়েছে।



এবার চলুন প্রকাশিত রায়ের আলোকে সম্পন্ন হওয়া নিয়োগ প্রক্রিয়াটি খতিয়ে দেখা  যাক। রায়ের শেষের দিকে বলা আছে " It is very much notable that the NTRCA certification process has began for quite some time since 2005 and by now 13 batches have entered the examinations and there must be a concrete upto date data base, so that the latest merit list as per subject I.e. subject wise merit list be available and that should be made /published through publication in the official web page. "

ভাবানুবাদ : ইহা খুবই গুরুত্বপূর্ণ যে এনটিআরসিএর সনদ প্রদান প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে অল্প কিছুদিন হলো ২০০৫ সাল থেকে এবং এখন পর্যন্ত ১৩টি ব্যাচ পরীক্ষা দিয়েছে। সেখানে অবশ্যই একটি নিরেট হালনাগাদ করা তথ্যভান্ডার থাকতে হবে যাতে বিষয়ভিত্তিক সর্বশেষ মেধাতালিকা বিদ্যমান থাকে এবং তা এনটিআরসিএর ওয়েবসাইটে প্রকাশ করতে হবে!

এখানে স্পষ্ট বলা হয়েছে কাদেরকে নিয়ে মেধাতালিকা হবে। ২০০৫ সালের ১ম নিবন্ধন থেকে এখন পর্যন্ত উত্তীর্ণ সকল নিবন্ধনকারীদের নিয়ে বিষয়ভিত্তিক মেধাতালিকা করা হবে (যার মধ্যে রীটকারীদেরও নাম থাকবে তবে অবশ্যই তাদের প্রাপ্ত নম্বরের ভিত্তিতে)। প্রতি বছর এই মেধা তালিকা আপডেট করবে এনটিআরসিএ। এবং বাস্তবেও সেভাবেই কাজ করছে এনটিআরসিএ।



অনেকের কাছেই অস্পষ্ট ছিলো এই মেধাতালিকা থেকে নিয়োগ দেয়া হবে কিভাবে? কারও কারও মনে প্রশ্ন জাগে মেধাতালিকা থেকে নিজেদের পছন্দমত বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সরাসরি নিয়োগ দেবে এনটিআরসিএ? কাকে কিভাবে কোন প্রতিষ্ঠানে নিয়োগ দেবে? মূলত এর উত্তরও আছে রায়ের একেবারে শেষ অংশে।

"Every time the advertisement is made upon preparing the requirement list on demand from the educational institutions, the applicants should have access to the list and would apply according to their choices and be chosen as per national merit list that is updated every year."

ভাবানুবাদ : প্রত্যেকবার নিয়োগের বিজ্ঞাপন প্রকাশ করতে হবে, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের চাহিদাপত্র প্রস্তুতের ভিত্তিতে। শুন্য পদের তালিকা প্রার্থীদের জন্য উন্মুক্ত হতে হবে এবং প্রার্থী তার পছন্দমত প্রতিষ্ঠানে আবেদন করবে। প্রতি বছরের সর্বশেষ হালনাগাদ করা জাতীয় মেধাতালিকা হতে তাদের নির্বাচন করতে হবে। 



তার মানে কি বুঝলেন? মেধাতালিকায় নাম থাকা একজিনিস আর নিয়োগ হওয়া আরেক জিনিস। মেধাতালিকায় ১ম থেকে বর্তমানের ১৪তম পর্যন্ত উত্তীর্ণ সকলেরই নাম আছে। কারো নামই বাদ পড়েনি। তবে বিষয়ভিত্তিক করা এই মেধাতালিকায় নামগুলো আছে নিবন্ধন পরীক্ষায় প্রাপ্ত নম্বরের ক্রমানুসারে। প্রতি বছর তালিকা আপডেট হওয়ার সময় কারো নাম যাবে উপরে আবার কারো নাম নিচে নেমে আসবে। তালিকায় আপনার অবস্থান প্রতি বছর পরিবর্তন হতে থাকবে চাকুরী হওয়ার আগ পর্যন্ত! এই তালিকা হবে ওয়েবসাইটে প্রকাশিত, উন্মুক্ত! এখানে রীটকারী ননরিটকারী বৈষম্যের কোনো সুযোগ নেই!

এ তো গেলো মেধা তালিকার কথা! এখন আসুন নিয়োগের কথায়! ২য় অনুবাদ পড়ে বুঝতে পারছেন নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি দেয়া হবে শুন্যপদের প্রেক্ষিতে। নিজের পছন্দমত প্রতিষ্ঠানগুলোতে আবেদন করতে হবে। এরপর প্রতিটি প্রতিষ্ঠানের আবেদনকারীদের মধ্য থেকে জাতীয় মেধাতালিকা অনুযায়ী প্রাপ্ত নম্বরের ভিত্তিতে নিয়োগ দেয়া হবে! নতুন নিয়মে ১ম নিয়োগ থেকে একটাই পার্থক্য আছে আর তা হলো জেলা, উপজেলা কোটা বিলুপ্ত হয়েছে! 

এ থেকে বোঝা যাচ্ছে মেধাতালিকায় নাম থাকার অর্থ নিয়োগ পাওয়া নয়। কারণ মেধাতালিকায় ১ম থেকে সর্বশেষ পরীক্ষায় উত্তীর্ণ নিবন্ধনকারী সকলেরই নাম থাকবে প্রাপ্ত নম্বরের ক্রমানুসারে। নিয়োগের জন্য নিজ নিজ পছন্দের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আবেদন করতে হবে। সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানে আবেদনকারীদের মধ্য থেকে সর্বোচ্চ নম্বর প্রাপ্ত প্রার্থীকে নিয়োগ দেয়া হবে বিষয়ভিত্তিক সমন্বিত জাতীয় মেধাতালিকা অনুযায়ী। 



উল্লেখ্য আদালত NTRCA কে রায়ের কপি হাতে পাওয়ার ৯০ দিনের মধ্যে এই মেধাতালিকা প্রকাশ করতে বলেছে। এর অর্থ এই নয় যে উক্ত ৯০ দিনের মধ্যে নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে হবে। নিয়োগ প্রক্রিয়া ভিন্ন বিষয় যা আগেই বলা হয়েছে।

আরো পড়ুন : ১৬তম শিক্ষক নিবন্ধন সার্কুলার ২০১৯

আলোচিত মেধা তালিকার আরেকটি বৈশিষ্ট্য হলো এ তালিকায় নম্বরের দিক থেকে এগিয়ে থাকাই চাকুরী নিশ্চিত হওয়ার একমাত্র মাধ্যম নয়। আপনি যে প্রতিষ্ঠানে আবেদন করবেন সেই প্রতিষ্ঠানে আপনার চেয়ে বেশি নম্বর প্রাপ্ত কেউ আবেদন করে থাকলে তার চাকুরীই নিশ্চিত হবে। আবার উক্ত প্রতিষ্ঠানে আপনিই সর্বোচ্চ নম্বরপ্রাপ্ত আবেদনকারী হলে আপনার চাকুরীই নিশ্চিত হবে! সহজ কথায় আপনার নিয়োগ নির্ভর করবে শুধু জাতীয় মেধাতালিকায় আপনার অবস্থানের উপর নয় বরং আপনি যে প্রতিষ্ঠানগুলোতে আবেদন করছেন সেই প্রতিষ্ঠানগুলোতে  আবেদন করা অন্যান্য প্রার্থীদের সাথে আপনার নম্বরের পার্থক্যের উপর। অর্থাৎ আপনাকে সারা বাংলাদেশের সকল নিবন্ধনকারীর সাথে প্রতিযোগিতা করতে হবেনা। প্রতিযোগিতা করতে হবে যেসকল প্রতিষ্ঠানে আবেদন করবেন সেসকল প্রতিষ্ঠানে আবেদন করা অন্যান্য প্রার্থীদের সাথে। উদাহরণ হিসেবে বলা যায় ধরুন আপনার প্রাপ্ত নম্বর ৫৫। আপনি যে প্রতিষ্ঠানে আবেদন করেছেন সেখানে আরো চারজন আবেদন করেছেন যাদের নম্বর যথাক্রমে ৪৯, ৫০, ৫২, ৫৪। সেক্ষেত্রে উক্ত প্রতিষ্ঠানে ৫৫ নম্বর পেয়েই নিয়োগ হবে আপনার। আবার ২য় আরেকজন ব্যাক্তির প্রাপ্ত নম্বর ৬৫। কিন্তু সে যে প্রতিষ্ঠানে আবেদন করেছে সেখানে আবেদনকারীদের মধ্যে একজনের নম্বর ৬৬। সেক্ষেত্রে ৬৫ নম্বর পেয়েও চাকরি হবেনা ২য় ব্যাক্তির।

আরো পড়ুন : বেসরকারি শিক্ষক নিয়োগের বয়স নির্ধারণ


ntrca update news সর্বশেষ কি

এই প্রতিবেদনটি লেখা হয়েছিলো অনেকদিন আগে। যখন সবেমাত্র আদালতের রায় প্রকাশিত হয়েছিলো। সেসময় সকল নিবন্ধনকারীই অন্ধকারে ছিলেন নিয়োগ প্রক্রিয়া নিয়ে। কেউই বুঝতে পারছিলেন না কিভাবে কোন পদ্ধতিতে নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করবে ntrca। এই প্রতিবেদনটিই ছিলো অনলাইনে এ বিষয়ে সর্বপ্রথম স্পষ্ট বিশ্লেষণ।

আপনারা জেনে খুশি হবেন যে এই প্রতিবেদনের প্রতিটি বক্তব্যই পরবর্তীতে বাস্তবে ঘটা নিয়োগ প্রক্রিয়ার সাথে হুবহু মিলে যায়। ইতোমধ্যেই এনটিআরসিএ মেধাতালিকা প্রকাশিত হয়েছে।সারা দেশের সকল বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শুন্য পদের তালিকা সংগ্রহের কাজও সম্পন্ন করেছে ntrca। সকল সংবাদ মাধ্যমের খবর অনুযায়ী সারা দেশ থেকে প্রায় ৩৯০০০ শুন্য পদের চাহিদা পাওয়া যায়। বেসরকারি শিক্ষক নিয়োগ এর গণবিজ্ঞপ্তিও প্রকাশ করা হয়েছে গত ডিসেম্বরের ১৮ তারিখে।

এবং নিবন্ধনকারীগণ আবেদন করেছেন ১৯/১২/২০১৮ থেকে ০২/১২/২০১৯ তারিখ পর্যন্ত।এতে সেসকল নিবন্ধনকারী আবেদন করতে পেরেছেন যাদের বয়স ১২ই জুন ২০১৮ পর্যন্ত ৩৫ অথবা তার কম।

আবেদন ফী নির্ধারণ করা হয়েছে ১৮০ টাকা।যথারীতি গত নিয়োগের মতো এবারও একজন প্রার্থী যতখুশি তত প্রতিষ্ঠান এবং পদে আবেদন করতে পেরেছেন। এলাকা ভিত্তিক কোনো কোটা প্রযোজ্য ছিলোনা। তবে এবারের ভিন্ন একটি সংযোজন ছিলো আবেদনের ক্ষেত্রে পছন্দের ক্রম উল্লেখ করতে হবে। বিষয়টি বুঝতে কারো সমস্যা হলে কমেন্ট করে জানান উত্তর দেয়া হবে।

নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ডাউনলোড, আবেদনের বিস্তারিত নিয়ম কানুন জানতে, শুন্য পদের তালিকা, মেধাতালিকা দেখতে এবং সরাসরি আবেদন করতে ntrca official website ভিজিট করুন।

ntrca news

এদিকে একের পর এক মামলার সম্মুখীন হওয়ায় এবং ব্যাপকভাবে সমালোচনার মুখে পড়ায় জাতীয় শুদ্ধাচার কৌশলের অনুসরণে গণশুনানি আয়োজন করে ntrca। সারাদেশে ৮টি বিভাগে পর্যায়ক্রমে এ গণশুনানি আয়োজন করার কথা বলা হয়। ইতোমধ্যেই এ সংক্রান্ত একটি নোটিশ প্রকাশ করেছে ntrca। বলা হয়েছে প্রথম গণশুনানি অনু্ষ্ঠিত হবে সিলেটে। ২৪/০১/১৯ তারিখে সিলেট জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে ৪ টা ৪৫ মিনিটে অনুষ্ঠিত গণশুনানিতে সিলেট বিভাগের সকল নিবন্ধনকারীদের উপস্থিত থাকার জন্য বলা হয়। এতে এনটিআরসিএ এর উর্ধতন কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন এনটিআরসিএ চেয়ারম্যান জনাব এস এম আশফাক হোসেন।গণশুনানিতে নিবন্ধনকারীদের কাছ থেকে তাদের সমস্যা, অভিযোগ, আবেদন ইত্যাদি শোনা হয় এবং পরবর্তীতে সে অনুযায়ী ব্যাবস্থা গ্রহণ করার আশ্বাস দেয়া হয়!

ntrca e-result

অবশেষে ২৪শে জানুয়ারি প্রকাশিত হয় এনটিআরসিএ ২য় চক্রের বেসরকারি শিক্ষক নিয়োগের সুপারিশ। সুপারিশ প্রাপ্তদের এবং সংশ্লিষ্ট শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে এসএমএসের মাধ্যমে ফলাফল জানিয়ে দেয়া হয়েছে। এছাড়াও এনটিআরসিএ এর ওয়েবসাইটে আবেদনের রেজাল্ট দেখা যাচ্ছে। আপনার e-result দেখতে এখানে ক্লিক করে নিজের ব্যাচ নং এবং রোল নং দিন।


এদিকে শুধু এন্ট্রি লেভেলের সহকারী শিক্ষকই নয় বরং বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সকল পদেই এনটিআরসিএ কতৃক নিয়োগ দেয়ার প্রস্তুতি চলছে বলে জানা গেছে! এ বিষয়ে শিক্ষা মন্ত্রীর ইতিবাচক সাড়া রয়েছে। এ সংক্রান্ত কার্যপ্রণালী চূড়ান্ত করতে গত ৫ই মার্চ শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে বৈঠক হওয়ার বিষয়েও খবর পাওয়া গেছে।

জানা গেছে এ বিষয়টি চূড়ান্ত হলে বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পিয়ন থেকে শুরু করে প্রধান শিক্ষক/অধ্যক্ষ নিয়োগের সুপারিশও করবে এনটিআরসিএ। দৈনিক শিক্ষার খবরে জানা গেছে মন্ত্রণালয়ের বৈঠক থেকে ইতোমধ্যেই এ সংক্রান্ত প্রস্তাব প্রেরণের জন্য এনটিআরসিএ কে নির্দেশ দেয়া হয়েছে এবং প্রস্তাব পাঠানোর প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে এনটিআরসিএ থেকে।

ntrca সর্বশেষ খবর জানতে সবসময় সমকাল ব্লগের সাথেই থাকুন।




November 17, 2019

রহস্য পত্রিকা , রহস্য পত্রিকা pdf download 2019

রহস্য পত্রিকা pdf

রহস্য পত্রিকা PDF ডাউনলোড করতে চান? রহস্য পত্রিকা হলো সেবা প্রাকাশনী থেকে প্রকাশিত একটি মাসিক পত্রিকা। রহস্য পত্রিকা PDF download করতে চাইলে সহজেই তা করতে পারবেন সমকাল ব্লগ থেকে। রহস্য পত্রিকা ২০১৯ সালেও পূর্বের মতোই জনপ্রিয় একটি মাসিক পত্রিকা। তবে অনেকেই রহস্য পত্রিকা ফ্রি ডাউনলোড করে পড়তে চান। তাদের জন্যই রহস্য পত্রিকা PDF download 2019 লিংকগুলো শেয়ার করা হচ্ছে।


আমার জীবনে সবচেয়ে বেশি এবং নিয়মিত যে মাসিক পত্রিকা বা ম্যাগাজিনটি পড়া হয়েছে সেটি হলো সেবা প্রকাশনির রহস্য পত্রিকা। পেপারব্যাক এ মাসিক রহস্য পত্রিকাটি বাংলাদেশে বেশ জনপ্রিয়। প্রতি মাসের নতুন রহস্য পত্রিকাটি হাতে পাওয়ার জন্য উন্মুখ হয়ে থাকতাম। কাজী আনোয়ার হোসেন সম্পাদিত রহস্য পত্রিকাটি থাকতো নানারকম স্বাদে ভরপুর। বেশ কয়েকবছর ধরে নিয়মিত পড়েছি,কোনো মাসেই বাদ যায়নি। সেসময় রহস্য পত্রিকার প্রতিটি সংখ্যার মূল্য ছিলো বিশ টাকা।আমাদের এলাকায় একমাত্র রেলওয়ে বুকস্টলেই পাওয়া যেতো রহস্য পত্রিকা। ঢাকা থেকে ডাকযোগে আসতে মাসের চার পাঁচ তারিখ লেগে যেতো! অথচো এই অপেক্ষাও অনেক দীর্ঘ মনে হতো তখন। এটা স্কুল জীবনের কথা। অনেক ছোট ছোট বিষয়ের মাঝেও অপার আনন্দ খুঁজে পাওয়ার বয়স তখন! মাসের চার পাঁচ তারিখ পার হলেই প্রতিদিন স্টলে গিয়ে খোঁজ নিতাম কবে আসবে পত্রিকা, এতো দেরি হচ্ছে কেন? অবশ্য আমার মতো নিয়মিত পাঠক সম্ভবত খুব বেশি ছিলোনা আমার এলাকায়! কারণ দেখতাম মাত্র দশ থেকে পনেরো পিস পত্রিকা আসতো প্রতিমাসে! আমার মতো বাঁধা কয়েকজন কাস্টমারদের জন্যই হিসেব করে আনা হতো! এমন অনেকবারই হয়েছে যে ডাক থেকে আনার পর প্যাকেট খুলে প্রথম পত্রিকাটি আমিই বাড়ি নিয়ে গেছি। সেই ফিলিংস আর কখনও উপভোগ করা সম্ভব নয়! কিন্ত স্মৃতিচারণের মধ্যেও আলাদা আনন্দ রয়েছে! এছাড়াও পড়ুন কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স PDF 2019 এবং প্রফেসরস শিক্ষক নিবন্ধন গাইড

কখন যে পড়া বাদ দিয়েছি কেন বাদ দিয়েছি তা স্পষ্ট মনে নেই। তবে পুরনো পত্রিকাগুলো এখনো সংগ্রহে আছে! অবশ্য নিশ্চয়ই অনেক ধুলো জমে গেছে সেগুলোর উপর। হঠাৎই কিছুদিন আগে মনে হলো দেখিতো আগের মতোই আছে নাকি সেই রহস্য পত্রিকার রহস্যের ভান্ডার? এখন তো ডিজিটাল যুগ। মন চাইলেই অনেক কিছু সাথে সাথেই হাতের নাগালে চলে আসে! সত্যিই ইন্টারনেটে খুঁজে পেলাম রহস্য পত্রিকা pdf download লিংক। ডাউনলোড করে পড়ে ফেললাম 😄😄 আশ্চর্য আবার পুরনো দিনের সেই অনুভূতিই যেনো ফিরে পেলাম!




রহস্য পত্রিকা PDF download 2019

একটি ওয়েবসাইট খুঁজে পেলাম যেখানে প্রতিমাসের রহস্য পত্রিকা pdf নিয়মিত আপলোড করা হয়! তবে অবশ্যই চলমান মাসের কপি নয়। গতমাসের কপি! কিন্তু ভালো লাগলো দেখে যে প্রতিমাসেই নিয়মিত আপলোড হয়! কাজেই এরকম হঠাৎ যদি কোনো অবসরে মনে হয় পুরনো দিনের প্রিয় সেই পত্রিকাটিতে একটু চোখ বুলিয়ে নিই এখন আর তাতে কোনো বাধা নেই! এখানে রহস্য পত্রিকা ২০১৯ এর ডাউনলোড লিংক শেয়ার করে দিলাম। আমার মতো কোনো খেয়ালী পাঠক চাইলে যাতে সহজেই পড়তে পারে রহস্যময় সেই রহস্য পত্রিকা।

আরো অনেক ওয়েবসাইটেই হয়তো রহস্য পত্রিকার ডাউনলোড লিংক দেয়া আছে তবে সেসব লিংকে ক্লিক করলে বিরক্তিকর এডভার্টাইজমেন্ট শো করবে। ডাউনলোড করতে বেশি সময় লাগবে। এখানে ডাউনলোড করলে ঝামেলা ছাড়াই সরাসরি mediafire থেকে ডাউনলোড হবে।

মোবাইল ফোন অথবা কম্পিউটার থেকে যে কোনো ওয়েব ব্রাউজার দিয়ে রহস্য পত্রিকা খুব সহজেই ডাউনলোড করা যাবে। যাদের মোবাইল অথবা কম্পিউটারে ইবুক পড়ার অভ্যাস আছে তারা জানেন ইবুক বা pdf ফাইল পড়ার জন্য Adobe reader app বা software প্রয়োজন হয়। রহস্য পত্রিকা পড়ার জন্যও adobe reader প্রয়োজন হবে। যাদের মোবাইলে app টি নেই তারা Google play থেকে এখনই ডাউনলোড করে নিতে পারেন।


Google play স্টোরে রহস্য পত্রিকা পড়ার জন্য রহস্য পত্রিকা কালেকশন নামে jingalala app এর তৈরি একটি app আছে। তবে এটি ডাউনলোড করার পরামর্শ দেবোনা কারণ app টির কোয়ালিটি খুবই খারাপ। ভবিষ্যতে ভালো কোনো app পাবলিশ হলে এবং আমাদের নজরে আসলে তা পাঠকদের জানিয়ে দেয়া হবে।

রহস্য পত্রিকা প্রতিষ্ঠার ইতিহাস জানতে চান? তাহলে পড়ুন।

রহস্য পত্রিকা মে ২০১৯ pdf
নমুনা পাতা

কৃতজ্ঞতা :  অরিজিনাল আপলোডার এবং বইঘর


Thursday, 14 November 2019

November 14, 2019

কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স নভেম্বর ২০১৯ pdf

প্রফেসরস প্রকাশনীর বই

কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স নভেম্বর ২০১৯ প্রকাশিত হয়েছে। কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স PDF ডাউনলোড করতে চান প্রতিমাসে? কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স সেপ্টেম্বর ২০১৯ PDF ডাউনলোড করুন।

২০১৮ সালে প্রতি মাসেই আমাদের সমকাল ব্লগ থেকে আপনারা কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স ডাউনলোড করে পড়তে পেরেছেন। কিন্তু ২০১৯ সালে আমরা প্রতিমাসে আপডেট দিতে পারিনি। এজন্য আমরা আন্তরিকভাবে দুঃখিত। তবে আশা করি এখন থেকে পুনরায় প্রতি মাসে ডাউনলোড করে পড়তে পারবেন কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স PDF। এছাড়াও প্রতিমাসে  সেবা প্রকাশনীর জনপ্রিয় রহস্য পত্রিকা pdf download করে পড়ুন।

প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক নিয়োগের পরীক্ষা শেষ। সামনেই ১৬ তম শিক্ষক নিবন্ধন এর পরীক্ষা। প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা অথবা যে কোনো চাকুরীর পরীক্ষার প্রস্তুতির জন্য প্রচুর পড়াশোনা করতে হয়।বিস্তারিত গাইডলাইন, সাজেশন, সিলেবাস সহ বাজারে বিভিন্ন প্রকাশনীর চাকুরীর প্রস্তুতি গাইড পাওয়া যায়। এরমধ্যে হাতে গোনা কয়েকটি প্রকাশনীর বই নির্ভরযোগ্য এবং মানসম্পন্ন। সেগুলোর মধ্যে প্রফেসরস প্রকাশনীর বইগুলো অন্যতম।



প্রফেসরসের জব সল্যুশন এবং কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স সকল চাকুরী প্রার্থীর কাছেই সুপরিচিত। বিশেষ করে কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স প্রতিমাসেই নিয়মিত পড়ে থাকেন অনেক চাকুরী প্রার্থী। এতে প্রতি মাসেই ঘটে যাওয়া উল্লেখযোগ্য সাম্প্রতিক ঘটনাবলী সম্পর্কে জানা যায়। বিভিন্ন ভর্তি পরীক্ষা এবং চাকুরীর নিয়োগ পরীক্ষায় আসার মতো সাম্প্রতিক প্রশ্নোত্তর দিয়েই সাজানো থাকে কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স। প্রচুর তথ্যবহুল এবং ভর্তি পরীক্ষা, নিয়োগ পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারীদের জন্য উপকারী কারেন্ট অ্যাফেয়ার্সের মূল্যও খুব বেশি নয়। এটি পড়তে চাইলে ক্রয় করে পড়াই সবচেয়ে উত্তম। বিশেষ ক্ষেত্রে PDF ভার্সন ডাউনলোড করেও পড়া যায়। আমরা যেখানেই যাই আর কিছু না থাকুক মোবাইল ফোনটি সবসময়ই আমাদের সাথেই থাকে। কাজেই ফোনে কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স PDF ভার্সন ডাউনলোড করা থাকলে যে কোনো অবস্থায় যে কোনো জায়গায় সুযোগ পেলেই চোখ বোলানো যাবে।

পাঠকদের সুবিধার জন্য সমকাল ব্লগ থেকে প্রতিমাসে ২০১৯ সালে প্রকাশিত প্রফেসরস কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স pdf ডাউনলোড লিংক দেয়া হচ্ছে। যেমন কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স আগস্ট ২০১৯। তবে এগুলোর আপলোডার আমরা নই।



এটি প্রফেসরস প্রকাশনীর অফিশিয়াল কোনো সার্ভিস নয় এবং আমরা সমকাল ব্লগ কতৃপক্ষও এটি আপলোড করিনা। কেউ সম্পূর্ণ নিজের উদ্যোগে এটি প্রতিমাসে আপলোড করে থাকেন।আমরা শুধুমাত্র ডাউনলোড লিংক দিয়ে থাকি।কাজেই যতদিন তাঁরা আপলোড করতে থাকবেন এবং আমাদের ডাউনলোড লিংক শেয়ারের বিষয়ে আপত্তি করবেন না ততদিনই এখানে নিয়মিত প্রতি মাসের কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স ডাউনলোড করা যাবে। আমরা বর্তমান অরিজিনাল আপলোডার বইঘরের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।

কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স মে ২০১৯ pdf
নমুনা পাতা

কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স PDF ডাউনলোড করুন

  • কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স ডিসেম্বর ২০১৯ PDF
  • কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স জানুয়ারি ২০২০ PDF
  • কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স ফেব্রুয়ারি ২০২০ pdf

  • কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স মার্চ ২০২০ pdf
  • কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স এপ্রিল ২০২০ pdf

প্রফেসরস প্রকাশনীর বিশেষ কিছু বইয়ের pdf download করুন

প্রফেসরস জব সলিউশন pdf download একেবারে পূর্ণাঙ্গ ভার্সন এখনও ইন্টারনেটে পাওয়া যাচ্ছেনা। তবে কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স PDF ছাড়াও প্রফেসরস প্রকাশনীর আরো কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ বইয়ের PDF শেয়ার করা হলো। আশা করা যায় বইগুলো যে কোনো চাকুরি প্রার্থী এবং প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারীদের বিশেষ উপকারে আসবে।

তবে আমরা কখনও শুধু এইসব প্রফেসরস PDF বইয়ের উপর নির্ভরশীল হতে বলবোনা চাকুরী প্রার্থীদের। আগেই বলা হয়েছে চলার পথে যে কোনো সময় যাতে চোখ বুলানো যায় এবং যে কোনো অবস্থায় চর্চা করা যায়, কাছে বই না থাকার জন্য যাতে অনুশীলন ব্যাহত না হয় শুধু এজন্যই আমরা এসব PDF সাথে রাখার পরামর্শ দিচ্ছি। নিচে প্রফেসরস প্রকাশনীর জব সলিউশন গাইড pdf এর পরিবর্তে একইরকম উপকারী অন্য কয়েকটি বইয়ের ডাউনলোড লিংক দেয়া হলো। বইগুলো ব্যাংক জব প্রার্থী এবং বিসিএস প্রার্থীদেরও অনেক উপকারে আসবে।




যত দ্রুত সম্ভব প্রফেসরসের বইগুলো ডাউনলোড করে নেয়াই ভালো কারণ এসব লিংক পার্মানেন্ট নয়। যে কোনো সময় রিমুভ হতে পারে ।


ডাউনলোড করতে কোনো সমস্যা হলে কমেন্ট করে জানান , আপডেট করা হবে।

তবে PDF ফাইলগু‌লো শেয়ার করায় যদি কোনো লিগ্যাল কতৃপক্ষ ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন বলে মনে করেন অথবা যদি কোনো অভিযোগ থাকে তাহলে phoneapps43@gmail.com এই ইমেইলে যোগাযোগ করুন। যথাযথ ব্যাবস্থা গ্রহণ করা হবে।

আরো পড়ুন :
পোস্টটি উপকারী মনে হলে বন্ধুদের সাথে শেয়ার করতে ভুলবেননা।



Saturday, 9 November 2019

November 09, 2019

পানি উন্নয়ন বোর্ড নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ২০১৯ প্রকাশ করেছে পাউবো| অনলাইনে আবেদন করুন

বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড নিয়োগ

বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ২০১৯ প্রকাশ করেছে পাউবো। ফলে শুরু হলো পানি উন্নয়ন বোর্ড নিয়োগ 2019। পানি উন্নয়ন বোর্ড বা পাউবো হলো বাংলাদেশ সরকারের একটি অঙ্গ প্রতিষ্ঠান। সুতরাং চাকরি প্রার্থীরা বুঝতেই পাচ্ছেন পানি উন্নয়ন বোর্ড নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ২০১৯ হলো একটি সরকারি নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি। আরো পড়ুন বাংলাদেশ ব্যাংক নিয়োগ ২০১৯ এবং বাংলাদেশ রেলওয়ে নিয়োগ ২০১৯

গত ২১ অক্টোবর ২০১৯ প্রকাশিত হয়েছে পানি উন্নয়ন বোর্ড নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি 2019। সরাসরি সরকারি ওয়েবসাইট থেকে ডাউনলোড করা পানি উন্নয়ন বোর্ড সার্কুলার ২০১৯ প্রকাশ করা হলো সমকাল ব্লগে। পানি উন্নয়ন বোর্ড নিয়োগ ২০১৯ এর সময় ফুরিয়ে যাবার আগেই আপনিও ডাউনলোড করুন পানি উন্নয়ন বোর্ড নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ২০১৯ PDF এবং আবেদন করুন অনলাইনে! আরো পড়ুন প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ সার্কুলার ২০১৯

পানি উন্নয়ন বোর্ড নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ২০১৯




পানি উন্নয়ন বোর্ড নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ২০১৯ PDF আকারে সরকারি ওয়েবসাইটে দেয়া আছে। আমরা পাঠকদের সুবিধার জন্য ছবি আকারে তা এখানে শেয়ার করলাম৷ বিজ্ঞপ্তিটি এখান থেকে সহজেই ডাউনলোড করে নিতে পারবেন সবাই। বিজ্ঞপ্তিটি ভালো করে পড়ুন এবং প্রদত্ত নির্দেশনা অনুযায়ী সঠিকভাবে আবেদন করুন। কোনো প্রশ্ন থাকলে কমেন্ট করে আমাদের তা জানাতে পারেন। যথাসম্ভব দ্রুত আপনাদের প্রশ্নের উত্তর দেয়া হবে।
পাউবো নিয়োগ ২০১৯
পাউবো নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ২০১৯

পানি উন্নয়ন বোর্ড নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ২০১৯ PDF




যারা সরকারিভাবে প্রকাশিত মূল বিজ্ঞপ্তিটি ডাউনলোড করতে চান তাদের জন্য পানি উন্নয়ন বোর্ড এর সরকারি ওয়েবসাইটে প্রকাশিত বিজ্ঞপ্তির লিংক শেয়ার করা হলো। পানি উন্নয়ন বোর্ড এর সরকারি ওয়েবসাইট লিংক https://www.bwdb.gov.bd/

পানি উন্নয়ন বোর্ড নিয়োগ 2019

বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি 2019 অনুযায়ী দুটি পদে মোট ১১০ জনকে নিয়োগ দেয়া হবে। নিয়োগ বিজ্ঞপ্তির বিস্তারিত নিচে তুলে ধরা হলোঃ

পদের নামঃ উপ-সহকারী প্রকৌশলী/শাখা কর্মকর্তা (পুর)/প্রাক্কলনিক
পদ সংখ্যাঃ ৮৫

বেতনঃ ১৬,০০০-৩৮,৬৪০

শিক্ষাগত যোগ্যতাঃ পুর কৌশলে ডিপ্লোমা ইন ইঞ্জিনিয়ারিং। তৃতীয় শ্রেণী বা বিভাগ গ্রহণযোগ্য নয়।

অভিজ্ঞতাঃ কম্পিউটার চালনায় অভিজ্ঞতা

পদের নামঃ উপ-সহকারী প্রকৌশলী/শাখা কর্মকর্তা (যান্ত্রিক/বিদ্যুৎ)
পদ সংখ্যাঃ ২৫

বেতনঃ ১৬,০০০-৩৮,৬৪০

শিক্ষাগত যোগ্যতা : যন্ত্রকৌশল, তড়িৎ কৌশল, শক্তি কৌশলে ডিপ্লোমা ইন ইঞ্জিনিয়ারিং। তৃতীয় শ্রেণি বা বিভাগ গ্রহণযোগ্য নয়।

অভিজ্ঞতা : কম্পিউটার চালনায় অভিজ্ঞতা

আবেদনের বয়সঃ ০১-১০-২০১৯ তারিখে বয়স ১৮-৩০ বছর তবে বিশেষ ক্ষেত্রে ৩২ পর্যন্ত

আবেদনের শেষ সময়ঃ ২০-১১-২০১৯

চাকুরীর ধরণঃ স্থায়ী

আবেদন ফীঃ ১০০০ টাকা

অনলাইনে আবেদনের নিয়ম




উল্লেখিত প্রতিটি পদের জন্য প্রার্থীকে অবশ্যই অনলাইনে আবেদন করতে হবে। অনলাইনে আবেদনের জন্য

  • প্রথমে https://rms.bwdb.gov.bd/orms/ এই ওয়েবসাইটে Sign up করতে হবে
  • এরপর Login করে ড্যাশবোর্ড থেকে আবেদন ফরমটি পূরন করতে হবে
  • সবশেষে নির্ধারিত পদ্ধতিতে পেমেন্ট করে আবেদন সম্পন্ন করতে হবে
  • সফলভাবে আবেদন শেষে এসএমএসের মাধ্যমে ইউজার আইডি এবং পাসওয়ার্ড পাওয়া যাবে

পদের নাম পদ সংখ্যা অনলাইন আবেদন
উপ-সহকারী প্রকৌশলী/শাখা কর্মকর্তা
(পুর)/প্রাক্কলনিক
৮৫ আবেদন করুন এখানে
উপ-সহকারী প্রকৌশলী/শাখা কর্মকর্তা
(যান্ত্রিক/বিদ্যুৎ)
২৫ আবেদন করুন এখানে

আরো বিস্তারিত জানতে নিচের ভিডিওটি দেখতে পারেন

পানি উন্নয়ন বোর্ড পরীক্ষা




প্রতিটি পদের জন্য প্রার্থীকে যথাসময়ে লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে হবে। পরীক্ষার পূর্বে এসএমএসের মাধ্যমে পরীক্ষার স্থান ও সময় জানিয়ে দেবে কতৃপক্ষ। এরপর ইউজার আইডি ও পাসওয়ার্ড দিয়ে অফিসিয়াল ওয়েবসাইট হতে পরীক্ষার প্রবেশপত্র ডাউনলোড করে নিতে হবে।

পানি উন্নয়ন বোর্ড নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্ন সম্পর্কে কারো কিছু জানার থাকলে প্রশ্ন করে তা আমাদের জানাতে পারেন। আমরা যথাসম্ভব সহযোগিতা করার চেষ্টা করবো ইনশাআল্লাহ



Wednesday, 6 November 2019

November 06, 2019

মাস্টার্স ফাইনাল রেজাল্ট ২০১৯ দেখুন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় ওয়েবসাইটে

মাস্টার্স ফাইনাল পরীক্ষার রেজাল্ট


মাস্টার্স ফাইনাল রেজাল্ট ২০১৯, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় মাস্টার্স ফাইনাল রেজাল্ট ২০১৯ দেখুন সমকাল ব্লগে। যারা ২০১৭ শিক্ষাবর্ষের মাস্টার্স ফাইনাল পরীক্ষা দিয়েছেন তাদের জন্য এই লেখাটি। মাস্টার্স ফাইনাল ফলাফল ২০১৯ প্রকাশিত হয়েছে ০৫ই নভেম্বর মঙ্গলবার। মাস্টার্স শেষ পর্ব রেজাল্ট ২০১৯ এবং মাস্টার্স শেষ পর্ব পরীক্ষার পুনঃনিরীক্ষণের রেজাল্ট ২০১৭ সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে সমকাল ব্লগে।এখানে পাবেন মাস্টার্স রেজাল্ট দেখার নিয়ম এবং মাস্টার্স ফাইনাল পরীক্ষার রেজাল্ট। আরও পড়ুন অনার্স ৪র্থ বর্ষের পরীক্ষার রুটিন ২০১৯ এবং ডিগ্রী ১ম বর্ষ পরীক্ষার রুটিন ২০১৯

    মাস্টার্স ফাইনাল রেজাল্ট ২০১৯ এর সারাংশ

    মাস্টার্স রেজাল্ট ২০১৭

    জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের মাস্টার্স শেষ পর্বের পরীক্ষায় ১৫৭ টি কলেজের ১ লক্ষ ৩৮ হাজার ৬৬৯ জন পরীক্ষার্থী অংশগ্রহণ করে। মূলত ৩০ বিষয়ে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। এতে উত্তীর্ণ হয় ১ লক্ষ ৫ হাজার ৪৫৫ জন। পাশের হার ছিলো ৭৬.০৫ শতাংশ। আরও পড়ুন প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ সার্কুলার ২০১৯

    ২০১৭ সালের মাস্টার্স ফাইনাল পরীক্ষার রেজাল্ট




    ২০১৭ সালের এবং ২০১৬-১৭ শিক্ষা বর্ষের জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় মাস্টার্স ফাইনাল পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে ২০১৯ সালে। মাস্টার্স ফাইনাল ফলাফল ২০১৯ দেখার সহজ উপায় বর্ণনা করা হয়েছে সমকাল ব্লগে।

    মাস্টার্স ফাইনাল রেজাল্ট ২০১৯ দেখুন এসএমএস এর মাধ্যমে

    মাস্টার্স শেষ পর্বের ফলাফল দেখার জন্য সহজ পদ্ধতি হলো মোবাইল ফোনের এসএমএস পদ্ধতি। এসএমএসের মাধ্যমে মাস্টার্স ফাইনাল ফলাফল দেখার পদ্ধতি দেখানো হয়েছে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে।আমাদের সমকাল ব্লগেও তা তুলে ধরা হলো।
    • প্রথমে মোবাইলের এসএমএস অপশনে টাইপ করুন NU MF Registration/Roll number
    • পাঠিয়ে দিন ১৬২২২ নম্বরে
    • উদাহরণ : NU MF 0123456 [Send to 16222]

    মাস্টার্স ফাইনাল রেজাল্ট ২০১৯ দেখুন অনলাইনে

    


    জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল রেজাল্ট অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে প্রকাশিত হয়।মাস্টার্স ফাইনাল রেজাল্ট ২০১৯ মার্কশীটসহ বিস্তারিত দেখতে
    1. প্রথমে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় অফিশিয়াল ওয়েবসাইট www.nu.ac.bd/results/ওপেন করতে হবে
    2. বামপাশের সাইড বার থেকে Masters সিলেক্ট করতে হবে
    3. এরপর Masters Final সিলেক্ট করতে হবে
    4. এরপর Individual Result সিলেক্ট করতে হবে
    5. Registration/Roll Number দিতে হবে
    6. Exam Year সিলেক্ট করতে হবে
    7. সর্বশেষ ক্যাপচা কোড বসিয়ে Search Result এ ক্লিক করলেই দেখা যাবে কাঙ্ক্ষিত রেজাল্ট
    মাস্টার্স ফাইনাল ফলাফল ২০১৯

    জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় রেজাল্ট এর গ্রেড থেকে সিজিপিএ হিসাব করার জন্য নিচের ভিডিওটি দেখতে পারেন

    মাস্টার্স শেষ পর্ব পরীক্ষার পুনঃনিরীক্ষণ ২০১৯

    কিভাবে দেখবেন ২০১৭ শিক্ষাবর্ষের মাস্টার্স শেষ পর্ব পরীক্ষার পুনঃনিরীক্ষণের রেজাল্ট?

    মাস্টার্স শেষ পর্ব পরীক্ষার পুনঃনিরীক্ষণের রেজাল্ট ২০১৬ প্রকাশিত হয়েছে ২২/০৫/১৯ তারিখে। জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রকাশিত নোটিশ অনুযায়ী ৯৫৫৯ জন মাস্টার্স শেষ পর্বের ছাত্র তাদের মাস্টার্স শেষ পর্ব রেজাল্ট ২০১৯ পুনঃনিরীক্ষণের জন্য আবেদন করেছিলো।

    জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে প্রকাশিত মাস্টার্স শেষ পর্ব পরীক্ষার পুনঃনিরীক্ষণের ফলাফল ২০১৬ থেকে দেখা গেছে বেশিরভাগ আবেদনকারীর ফলাফল অপরিবর্তিত রয়েছে।অল্প সংখ্যক আবেদনকারীর ফলাফল পরিবর্তন হয়েছে।

    সুতরাং আপনি মাস্টার্স শেষ পর্ব রেজাল্ট ২০১৯ পুনঃনিরীক্ষণের আবেদন করে থাকলে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে প্রকাশিত নোটিশটি ডাউনলোড করুন এবং নোটিশে প্রকাশিত লিস্টে দেখুন আপনার রেজাল্ট পরিবর্তন হয়েছে নাকি অপরিবর্তিত রয়েছে।

    যদি আপনার মাস্টার্স শেষ পর্ব রেজাল্ট ২০১৯ পরিবর্তন না হয়ে থাকে তাহলে নতুন করে আর কিছু করার নেই তবে যদি পরিবর্তন হয়ে থাকে তাহলে পুনরায় জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইট থেকে দেখে নিন পরিবর্তিত ফলাফল।

    মাস্টার্স ফাইনাল রেজাল্ট ২০১৯ সম্পর্কে আরো কোনো প্রশ্ন থাকলে কমেন্ট করে জানাতে পারেন আমাদের।
    মাস্টার্স শেষ পর্ব পরীক্ষার পুনঃনিরীক্ষণের রেজাল্ট ২০১৬





    Saturday, 12 October 2019

    October 12, 2019

    ১৭ তম শিক্ষক নিবন্ধন সার্কুলার ২০১৯ এর সর্বশেষ খবর

    শিক্ষক_নিবন্ধন_পরীক্ষা
    ১৬ তম শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষার বিজ্ঞপ্তি ২০১৯ প্রকাশিত হয়েছে। শিক্ষক নিবন্ধন সার্কুলার ২০১৯ প্রকাশ করেছে NTRCA। সামনে ১৭ তম শিক্ষক নিবন্ধন সার্কুলার ২০১৯। অতঃপর ১৬ তম শিক্ষক নিবন্ধন প্রিলিমিনারি পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশিত হয়েছে। শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষার বিজ্ঞপ্তি, প্রবেশপত্র ডাউনলোড, সিলেবাস এবং ফলাফলের বিস্তারিত তথ্য প্রকাশিত হলো সমকাল ব্লগে।

    ১৬ তম শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষা ২০১৯ এর প্রিলিমিনারি ও লিখিত পরীক্ষার তারিখ ঘোষণা করা হয়েছে বিজ্ঞপ্তিতে। স্কুল ও স্কুল ২ এর প্রিলিমিনারি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয় ৩০শে আগস্ট ২০১৯ শুক্রবার সকাল ১০টা থেকে ১১টা পর্যন্ত।কলেজ পর্যায়ের প্রিলিমিনারি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয় একই দিনে বিকেল ৩টা থেকে ৪টা পর্যন্ত। নিচে বিজ্ঞপ্তিটি দেয়া হয়েছে। বিস্তারিত দেখুন ১৬ তম শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষা ২০১৯ সংক্রান্ত বিজ্ঞপ্তিতে। আরও পড়ুন বাংলাদেশ ব্যাংক নিয়োগ ২০১৯

    ১৬ তম শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষার বিজ্ঞপ্তি ২০১৯




    বৃহস্পতিবার ২৩ মে ১৬ তম শিক্ষক নিবন্ধন সার্কুলার ২০১৯ প্রকাশ করা হয়। বিজ্ঞপ্তি অনুসারে ২৮শে মে বেলা ৩টা থেকে এনটিআরসিএ'র নির্ধারিত ওযেবসাইটে ১৬ তম শিক্ষক নিবন্ধন এর আবেদন করা যাবে। আগামী ১৯শে জুন সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত আবেদন করতে পারবেন আগ্রহী প্রার্থীগণ। আর ২২শে জুন পর্যন্ত আবেদনের ফি জমা দিতে পারবেন প্রার্থীরা। ১৬ তম শিক্ষক নিবন্ধনের ফি নির্ধারণ করা হয়েছে ৩৫০ টাকা। এ সংক্রান্ত বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত হয়েছে NTRCA ওয়েবসাইটে। আবেদনের নিয়ম বিস্তারিত বর্ণনা করা হয়েছে বিজ্ঞপ্তিটিতে।এনটিআরসিএ অফিসিয়াল ওয়েবসাইট থেকে ১৬ তম শিক্ষক নিবন্ধন বিজ্ঞপ্তি ডাউনলোড করে নিন।
    ১৬তম শিক্ষক নিবন্ধন

    ১৬তম নিবন্ধনের বিজ্ঞপ্তি
    ১৬তম নিবন্ধন সার্কুলার

    ১৭ তম শিক্ষক নিবন্ধন ২০১৯ অনলাইন আবেদন পদ্ধতি




    অনলাইনে সঠিকভাবে ১৭ তম শিক্ষক নিবন্ধনের আবেদন করার জন্য নিচের পদ্ধতি অনুসরণ করুন।
    • প্রথমে http://ntrca.teletalk.com.bd/home.php ওয়েবসাইটে প্রবেশ করুন
    • application form এ ক্লিক করুন
    • আপনার আবেদনের পদ নির্বাচন করুন
    • Candidates Information Form (CIF) পূরন করুন
    • আপনার ছবি এবং সিগনেচার আপলোড করুন
    • সবশেষে আপনার applicants copy সংরক্ষণ এবং প্রিন্ট করুন
    NTRCA অনলাইন আবেদন

    কিভাবে আপনার পরীক্ষার ফী পরিশোধ করবেন?




    আবেদন ফরমটি পূরন করার পর অবশ্যই আপনাকে নির্ধারিত ৩৫০ টাকা পরীক্ষার ফী পরিশোধ করতে হবে। কিন্তু কিভাবে এটি পরিশোধ করবেন?

    আপনাকে অবশ্যই টেলিটক প্রিপেইড সিম থেকে দুটি এসএমএস প্রেরণের মাধ্যমে পরীক্ষার ফী প্রদান করতে হবে। এজন্য সিমে পর্যাপ্ত টাকা রিচার্জ করে ফী প্রদান করার জন্য এসএমএস করুন!

    প্রথম এসএমএস ফরম্যাট
    NTRCA<Space>User ID (পাঠিয়ে দিন 16222 নম্বরে)
    প্রথম এসএমএস পাঠানোর পর ফিরতি এসএমএসে আপনাকে একটি PIN নম্বর দেয়া হবে।এই পিন নম্বর দিয়ে দ্বিতীয় এসএমএস পাঠাতে হবে।
    দ্বিতীয় এসএমএস ফরম্যাট
    NTRCA<Space>Yes<Space>PIN (পাঠিয়ে দিন 16222 নম্বরে)


    দ্বিতীয় এসএমএস পাঠানোর পরেই ফোনের ব্যালেন্স থেকে পরীক্ষার ফী কেটে নেয়া হবে এবং আপনার ইউজার আইডি ও পাসওয়ার্ড দিয়ে একটি ফিরতি এসএমএস পাঠানো হবে।এসএমএসটি ভবিষ্যতের কাজের জন্য সংরক্ষণ করে রাখতে হবে।
    • অনলাইনে আবেদন করার বায়াত্তর ঘন্টার মধ্যেই ফী পরিশোধ করতে হবে।
    • পরীক্ষার ফী সঠিকভাবে প্রেরণ না করা পর্যন্ত আবেদন গ্রহনযোগ্য হবেনা।

    ১৬ তম শিক্ষক নিবন্ধন রেজাল্ট

    ১৬ তম শিক্ষক নিবন্ধনের প্রিলিমিনারি পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশিত হয়েছে।

    এনটিআরসিএ ওয়েব সাইটে (http://ntrca.teletalk.com.bd/result/ ) ফল প্রকাশ করা হয়েছে। এছাড়া উত্তীর্ণ প্রার্থীদের এসএমএস করে ফলাফল জানানো হয়েছে।

    প্রিলিমিনারি পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের দ্বিতীয় ধাপে লিখিত পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে হবে। লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ প্রার্থীদের শেষ ধাপে মৌখিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে হবে।




    ১৭ তম শিক্ষক নিবন্ধন ২০১৯ পরীক্ষা পদ্ধতি

    ১২তম নিবন্ধন পরীক্ষা থেকে প্রিলিমিনারি এবং লিখিত পরীক্ষা আলাদাভাবে নেয়া হচ্ছে। বিসিএসের আদলে প্রথমে ১০০ নম্বরের প্রিলিমিনারি পরীক্ষায় পাস করতে হয়। এরপর লিখিত পরীক্ষায় অংশগ্রহণের সুযোগ পাওয়া যায়। আবার ১৩তম নিবন্ধন পরীক্ষা থেকে প্রিলিমিনারি, লিখিত পরীক্ষার পর আবার ভাইবা বা মৌখিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়া বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। নতুন নিয়ম অনুযায়ী প্রিলিমিনারি, লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়ার পরই পাওয়া যাবে নিবন্ধনের চূড়ান্ত সনদপত্র।বেসরকারি এমপিওভুক্ত অথবা নন এমপিও স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসায় শিক্ষক পদে চাকুরী করতে হলে NTRCA প্রদত্ত এই নিবন্ধন সনদপত্র অর্জন করা বাধ্যতামূলক।

    বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়াতেও এসেছে ব্যাপক পরিবর্তন। পূর্বে এসব প্রতিষ্ঠানে শিক্ষক নিয়োগ দেয়ার চূড়ান্ত এক্তিয়ার ছিলো প্রতিষ্ঠানের ম্যানেজিং কমিটির হাতে। বর্তমানে ২০১৬ সাল থেকে বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নিয়োগের সুপারিশের ক্ষমতা দেয়া হয়েছে এনটিআরসিএ 'র কাছে।





    নিবন্ধন পরীক্ষায় প্রাপ্ত নম্বরের ভিত্তিতে তৈরি  মেধাতালিকা অনুযায়ী নিয়োগের সুপারিশ করবে NTRCA। এজন্য নিবন্ধন পরীক্ষায় প্রাপ্ত নম্বর এখন বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষক হওয়ার জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। আরো পড়ুনঃ

    এজন্য বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষক হতে চাইলে নিবন্ধন পরীক্ষায় ভালো নম্বর পাওয়ার জন্য পরিপূর্ণ প্রস্তুতির প্রয়োজন।

    নিবন্ধন পরীক্ষায় আবেদনের যোগ্যতা

    অনেকেই নিজেদের শিক্ষাগত যোগ্যতা উল্লেখ করে প্রশ্ন করেন তারা নিবন্ধন পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে পারবেন কিনা। NTRCA তাদের  নিবন্ধনের সার্কুলারে স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছে কোন পদে নিবন্ধন পরীক্ষার আবেদনের জন্য কি যোগ্যতার প্রয়োজন। আপনার শিক্ষাগত যোগ্যতার সাথে মিলিয়ে দেখে নিন আপনি কোন পদে নিবন্ধন পরীক্ষায় আবেদনের জন্য যোগ্য।
    ১৬তম শিক্ষক নিবন্ধনের সার্কুলার ২০১৯
    দেখতে পাচ্ছেন সার্কুলারের ১৫ নং ধারা থেকে আবেদনের যোগ্যতার বিস্তারিত বিবরণ রয়েছে।পূর্ণাঙ্গ সার্কুলারটির ডাউনলোড লিংক দেয়া হয়েছে কাজেই বিজ্ঞপ্তিটি ডাউনলোড করে ভালো করে বুঝে নিন আপনি নিবন্ধন পরীক্ষায় আবেদনের জন্য যোগ্য কিনা।

    ১৭ তম শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষার সিলেবাস ২০১৯




    ১৭ তম নিবন্ধনের প্রিলিমিনারি এবং লিখিত পরীক্ষার সিলেবাস ডাউনলোড করুন। স্কুল পর্যায়ের ২৫ টি বিষয়ের ১০০ নম্বরের প্রিলিমিনারি পরীক্ষার সিলেবাস একই। তবে লিখিত পরীক্ষার সিলেবাস ভিন্ন ভিন্ন। ১৭ তম নিবন্ধন পরীক্ষার স্কুল পর্যায়ের সিলেবাস ডাউনলোড করুন।
    ১৬ তম নিবন্ধন পরীক্ষার স্কুল পর্যায়ের সিলেবাস

    আবার ১৭ তম নিবন্ধনের স্কুল ২ পর্যায়ের ২৪ টি বিষয়ের ১০০ নম্বরের প্রিলিমিনারি পরীক্ষার সিলেবাস একই কিন্তু লিখিত পরীক্ষার সিলেবাস আলাদা। ১৭ তম নিবন্ধন পরীক্ষার স্কুল ২ পর্যায়ের সিলেবাস ডাউনলোড করুন।
    ১৬ তম নিবন্ধনের স্কুল ২ সিলেবাস

    কলেজ পর্যায়ের নিবন্ধন পরীক্ষা হয় ৫১টি বিষয়ে। প্রতিটি বিষয়ের ১০০ নম্বরের প্রিলিমিনারি পরীক্ষার প্রশ্ন এবং সিলেবাস একই কিন্তু লিখিত পরীক্ষার প্রশ্ন এবং সিলেবাস ভিন্ন ভিন্ন। ১৭ তম নিবন্ধন পরীক্ষার কলেজ পর্যায়ের সিলেবাস ডাউনলোড করুন।
    ১৬ তম নিবন্ধন পরীক্ষার কলেজের সিলেবাস

    ১৭ তম নিবন্ধন পরীক্ষার মানবন্টন

    পরীক্ষার্থীদের নিশ্চয়ই জানা হয়ে গেছে যে নিবন্ধন পরীক্ষা তিনটি ধাপে অনুষ্ঠিত হবে। প্রিলিমিনারি, লিখিত এবং মৌখিক পরীক্ষা।

    প্রিলিমিনারি পরীক্ষার মোট নম্বর ১০০। চারটি বিষয়ে প্রিলিমিনারি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। বাংলা, ইংরেজি, সাধারণ গণিত এবং সাধারণ জ্ঞান। প্রতিটি বিষয়ে ২৫ টি করে প্রশ্ন থাকবে এবং প্রতিটি প্রশ্নের নম্বর ১। তবে প্রতিটি ভুল উত্তরের জন্য মোট নম্বর হতে ০.৫০ নম্বর কাটা হবে। পরীক্ষার সময় ১ ঘন্টা। প্রিলিমিনারি পরীক্ষার পাস নম্বর ৪০। 

    লিখিত পরীক্ষার প্রতিটি বিষয়ের নম্বর ১০০। প্রতিটি বিষয়ের লিখিত পরীক্ষার সময় তিন ঘন্টা।

    মৌখিক পরীক্ষার মোট নম্বর ২০। এর মধ্যে সনদপত্রের জন্য ১২ নম্বর এবং প্রশ্ন উত্তরের জন্য ৮ নম্বর। উভয় ক্ষেত্রেই ন্যুনতম ৪০% নম্বর না পেলে মেধাতালিকায় স্থান পাওয়া যাবেনা। 

    ১৭ তম শিক্ষক নিবন্ধন ২০১৯ প্রবেশপত্র ডাউনলোড




    ১৬ তম শিক্ষক নিবন্ধন ২০১৯ এর আবেদন প্রক্রিয়া শেষ হয়েছে আগেই। প্রিলিমিনারি পরীক্ষার রেজাল্ট প্রকাশিত হয়েছে। পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের লিখিত পরীক্ষার জন্য পুনরায় প্রবেশপত্র ডাউনলোড করতে হবে।

    ১৬ তম শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষা ২০১৯ এর লিখিত পরীক্ষার তারিখও ঘোষণা করা হয়েছে। পরীক্ষার পূর্বে প্রার্থীদের মোবাইল ফোনে এসএমএসের মাধ্যমে পরীক্ষার স্থান ও সময় জানিয়ে দেবে কতৃপক্ষ। এরপরই ডাউনলোড করা যাবে প্রবেশপত্র।

    প্রবেশপত্র ডাউনলোড করুন