Breaking

Translate

Sunday, 6 January 2019

NTRCA খবর | ১ম-১৪তম নিবন্ধনকারীদের শিক্ষক নিয়োগ আবেদন সম্পন্ন

NTRCA সর্বশেষ খবর ২০১৯



সম্প্রতি গত ২৬ শে আগস্ট দেশের সকল বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কাছে শূন্য পদের চাহিদা চেয়ে নোটিশ পাঠিয়েছে NTRCA। এতে আগামী ১৩ই সেপ্টেম্বর ২০১৮ তারিখের মধ্যে সকল বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে শূন্য পদের চাহিদা জানাতে বলেছে বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কতৃপক্ষ (NTRCA)। এ সংক্রান্ত সকল নোটিশ NTRCA অফিশিয়াল ওয়েবসাইটে পাবলিশ করা হয়েছে। যে কেউ ইচ্ছে করলেই ডাউনলোড করে পড়তে পারেন।

উল্লেখ্য ১৩ই সেপ্টেম্বর ২০১৮ তারিখের মধ্যে অনলাইনে ই-রিকুইজিশনের প্রক্রিয়া শেষ হলেই নিয়োগের জন্য ১৮ই ডিসেম্বর নিবন্ধনকারীদের কাছে আবেদন চেয়ে গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে NTRCA। এরপরই শুরু হয় বেসরকারি শিক্ষক নিয়োগ

বিষয়টি ভালভাবে বুঝতে প্রথমে NTRCA official website ngi.teletalk.com.bd এ প্রবেশ করুন। নিচের অপশনগুলো সামনে আসবে:


  • Notice Board
  • Combined National Merit List
  • DEO Login
  • USEO Login
  • Institute Login
  • Data Collection(1st-5th batch) 
  • Previous Cycle ( public circular: 2016-06-06)

এখান থেকে Notice Board এ ক্লিক করুন। নিচের অপশন দুটি দেখা যাবে:





  • USEO Section
  • Institutions Section

এখান থেকে Institutions Section এ ক্লিক করুন।নিচের মতো অপশন আসবে :


  • Office Order for e-Requisition
  • Instructions For e-Requisition
  • Guideline for e-Requisition and Payment

এখানে Office Order for e-Requisition এ ক্লিক করলে যে নোটিশটি ডাউনলোড হবে তাতে বলা হয়েছে:

এতদ্বারা সংশ্লিষ্ট সকলকে জানানো যাচ্ছে যে বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কতৃপক্ষ NTRCA ২য় বারের মত দেশের সকল বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান (স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা ও কারিগরি) শূন্য পদের বিপরীতে শিক্ষক নিয়োগ প্রদানের সুপারিশের কার্যক্রম শুরু করেছে। এ লক্ষ্যে বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসমূহ হতে অনলাইনে শূন্য পদের চাহিদা (e-Requisition) আগামী ১৩/০৯/২০১৮ তারিখের মধ্যে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের User ID ও Password ব্যবহার করে NTRCA ওয়েবসাইটে প্রেরণের জন্য অনুরোধ করা হলো। যথাযথভাবে এ কাজটি সম্পাদনের জন্য বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধানগণ কতৃক NTRCA এর ওয়েবসাইটে প্রদর্শিত নিয়মাবলী অনুসরণ করার অনুরোধ করা হলো।

এ বি এম শওকত ইকবাল শাহীন, পরিচালক ,(পরীক্ষা মূল্যায়ন ও প্রত্যয়ন ) এনটিআরসিএ, ঢাকা কতৃক স্বাক্ষরিত এ বিজ্ঞপ্তিতে স্পষ্টভাবে তারিখ উল্লেখিত আছে ২৬/০৮/১৮।

Instructions For e-Requisition অপশনে ক্লিক করলে যে নোটিশটি ডাউনলোড হবে তাতে বলা হয়েছে:

e-Requisition প্রদানকালে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কতৃক পালনীয় নির্দেশাবলী :
  • সরকার নির্ধারিত মহিলা কোটা অনুসরণ করতে হবে।
  • জনবল কাঠামো ও এমপিও নীতিমালা ২০১৮ অনুসরণ করতে হবে।
  • জনবল কাঠামো ও এমপিও নীতিমালা ২০১৮ তে উল্লেখিত নব সৃষ্টপদে e-Requisition দেয়া যাবে না। তবে যে সমস্ত পদের নাম পরিবর্তন হয়েছে কিন্তু শিক্ষাগত যোগ্যতা একই আছে সে সকল পদের e-Requisition দেয়া যাবে।
  • যে সমস্ত পদের মঞ্জুরী আছে সে পদের বিপরীতে e-Requisition দিতে হবে।
  • চাহিত পদটি MPO অথবা Non MPO তা উল্লেখ করতে হবে।
  • মোট অনুমোদিত পদের নাম ও সংখ্যা উল্লেখ করতে হবে।
  • e-Requisition এর ক্ষেত্রে কোনো ভুল তথ্য প্রদান করলে তার দায়িত্ব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধানের উপর বর্তাবে।
  • শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধান কতৃক দাখিলকৃত e-Requisition সঠিক কিনা তা সংশ্লিষ্ট উপজেলার মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মনিটর করবেন।

এ বিজ্ঞপ্তিটিও এ বি এম শওকত ইকবাল শাহীন, পরিচালক ,(পরীক্ষা মূল্যায়ন ও প্রত্যয়ন ) এনটিআরসিএ, ঢাকা কতৃক স্বাক্ষরিত হয়েছে এবং স্পষ্টভাবে তারিখ উল্লেখিত আছে ২৬/০৮/১৮।

এখন তৃতীয় অপশন Guideline for e-Requisition and Payment এ ক্লিক করলে যে নোটিশটি ডাউনলোড হবে তাতে দুটি আলাদা বিভাগ রয়েছে।

প্রথম বিভাগ : শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধানদের জ্ঞাতব্য কতিপয় বিষয়। এতে বলা হয়েছে :




  • প্রতিষ্ঠান প্রধানকে এনটিআরসিএ কতৃক প্রদত্ত User ID ও Password এনটিআরসিএ'র সাথে অনলাইনে ভবিষ্যৎ সকল যোগাযোগের যোগসূত্র হিসেবে প্রয়োজন হবে বিধায় এর গোপনীয়তা রক্ষাসহ অপব্যবহার রোধের দায়িত্ব প্রতিষ্ঠান প্রধানের।
  • কোনো পদের জন্য অনলাইনে শিক্ষক নিয়োগ চাহিদা পেশ করার পূর্বে সংশ্লিষ্ট পদ/পদসমূহে নিয়োগের জন্য আইন /বিধি মাফিক যে সকল দাপ্তরিক আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করা আবশ্যক তা প্রতিপালন করার পর ই-রিকুইজিশন পেশ করতে হবে।
  • কোনো পদের জন্য ইরিকুইজিশন পেশ করার সময় সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানে নিয়োগের ক্ষেত্রে সরকারি বিধি অনুযায়ী মহিলা কোটা পূরনের বাধ্যবাধকতা থাকলে তা অবশ্যই উল্লেখ করতে হবে। এ ক্ষেত্রে কোনো অনিয়ম/ব্যত্যয় হলে প্রতিষ্ঠান প্রধানসহ সংশ্লিষ্ট অন্যান্যদের বিরুদ্ধে বিধি মোতাবেক ব্যাবস্থা নেয়া হবে।
  • কোনো পদে নিয়োগের বিরুদ্ধে মামলা/আইনগত অন্য কোনো নিষেধাজ্ঞা থাকলে সে ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান থেকে যথাযথ আইনানুগ ব্যাবস্থা নিতে হবে। আদালত অবমাননা হয় এমন কোনো নিয়োগ চাহিদা পেশ করা যাবেনা।
  • প্রতিটি চাহিদা (ই-রিকুইজিশন) পেশ করার সময় এর একটি প্রিন্ট কপি সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানে সংরক্ষণ করতে হবে।

২য় বিভাগ : বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নিয়োগের জন্য অনলাইনে আবেদন করতে ইচ্ছুকদের জ্ঞাতব্য কিছু বিষয়। এখানে বলা হয়েছে :


  1. বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসমূহ হতে বিভিন্ন তারিখে অনলাইনে এনটিআরসিএতে প্রাপ্ত চাহিদাসমূহের একটি তালিকা এনটিআরসিএ 'র ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হবে।
  2. প্রকাশিত তালিকার বিভিন্ন পদসমূহের জন্য এনটিআরসিএ'র সনদধারী (১ম থেকে ১২তম পরীক্ষায় উত্তীর্ণ) সংশ্লিষ্ট সকলেই এনটিআরসিএ 'র নিকট অনলাইনে আবেদন করতে পারবেন। ই-আবেদন ফরম পূরনের সময় নামের বানান সহ অন্যান্য তথ্যাদি নিবন্ধন পরীক্ষার ফরম পূরনের সময় প্রদত্ত তথ্যের অনুরূপ হতে হবে।
  3. প্রতিটি পদের জন্য প্রাপ্ত সকল বৈধ আবেদনকারী অনলাইনে সফলভাবে আবেদন পেশ করার পরে এনটিআরসিএ 'র পক্ষ হতে একটি এসএমএস পাবেন। এছাড়া আবেদনকারীকে পেশকৃত আবেদনের একটি প্রিন্ট কপি সংরক্ষণ করতে হবে।
  4. প্রতিটি পদের বিপরীতে প্রাপ্ত বৈধ সকল আবেদনকারীকে (সরকারি বিধি মাফিক মহিলা কোটা ও আঞ্চলিক অগ্রাধিকার ইত্যাদি বিবেচনায় নিয়ে সরকার নির্ধারিত পদ্ধতিতে) এনটিআরসিএ 'র নিবন্ধন পরীক্ষার ফলাফলের মেধার ভিত্তিতে বাছাই করা হবে।
  5. প্রার্থী বাছাইকালে সংশ্লিষ্ট উপজেলার প্রার্থীদেরকে সর্বপ্রথম অগ্রাধিকার দেয়া হবে। সংশ্লিষ্ট উপজেলা থেকে কোনো আবেদন পাওয়া না গেলে পর্যায়ক্রমে সংশ্লিষ্ট জেলা ,বিভাগ ও জাতীয় মেধার ভিত্তিতে প্রার্থী বাছাই করা হবে। তবে বিভাগীয় শহরের পদসমূহ সংশ্লিষ্ট বিভাগের সকল প্রার্থীর জন্য এবং রাজধানী ঢাকা (উত্তর ও দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন এলাকা) এর পদসমূহ সারা দেশের নিবন্ধন সনদধারীদের জন্য উন্মুক্ত থাকবে।

এটি NTRCA ওয়েবসাইটে প্রকাশিত নোটিশ। তবে এই নোটিশে কোনো ইস্যু হওয়ার তারিখ উল্লেখ করা হয়নি। অনুমান করা যায় এটি পুরনো অর্থাৎ গত ২০১৬ সালের নিয়োগের সময়কার নোটিশ।

আদালত NTRCA কে যে সাতটি নির্দেশনা দিয়েছে তার ১ নম্বরেই বলা হয়েছে:


......The persons who have got certificate in the meantime for the same purpose shall remain valid until their appointment as the teachers for the non government educational instruction.......
কাজেই নিয়োগের জন্য আবেদনের সময় সার্টিফিকেট প্রাপ্ত সকল নিবন্ধনকারীই আবেদন করতে পারবে এটিই স্বাভাবিক। যেহেতু ১৪তম নিবন্ধনকারীরা এখনো সার্টিফিকেট পায়নি কাজেই তারা আবেদন করতে পারবেনা বলে ধারণা করা হয়েছিলো।তবে এনটিআরসিএ প্রয়োজনীয় তথ্য এসএমএসের মাধ্যমে জানিয়ে দেয়ায় আবেেদন করতে পেরেছে ১৪তমরা।কিন্তু ১৩ তম নিবন্ধনকারীরা যেহেতু ইতোমধ্যেই সার্টিফিকেট পেয়েছেন কাজেই ২০১৮ এর নিয়োগে তাদের আবেদন করতে কোনো বাধাই ছিলোনা। 

আবার NTRCA এর প্রতি আদালতের নির্দেশনার ৩ নম্বর ধারায় বলা হয়েছে :


There would be only one merit list and no merit list to be prepared by the NTRCA for the upazila, district or division basis and the recommendation for appointment of the teacher for non government educational institutions would be given from the combined national merit list.



কাজেই স্পষ্ট বোঝা যাচ্ছে যে উপজেলা, জেলা, বিভাগীয় অগ্রাধিকার তথা আঞ্চলিক অগ্রাধিকার বাতিল করা হয়েছে।২০১৯ সালের জন্য NTRCA বেসরকারি শিক্ষক নিয়োগ শুরু করলেও ৩৫ উর্ধ বয়সী নিবন্ধনকারীদের আবেদনের সুযোগ দেয়া হয়নি

এনটিআরসিএ সম্পর্কিত সকল সর্বশেষ খবর জানতে সমকাল ব্লগের সাথেই থাকুন।

ntrca সর্বশেষ খবর

4 comments:

  1. উপজেলা কোটা জেলা কোটা বিভাগীয় কোটা বাতিল করে হাইকোর্টের রায় অনুযায়ী জাতীয় মেধা তালিকার বাস্তবায়ন চাই।

    ReplyDelete
  2. এই বিজ্ঞপ্তির ফলে ইনডেকস দ্বারী শিক্ষকরা দারুন হতাশায় রয়েছে। কারন বর্তমান পরিপত্রে ইনডেকস দ্বারী শিক্ষকগণের আবেদনের সুযোগ থাকার কথা। পরিপত্রে ১১.১ এ লেখা আছে শিক্ষক নিয়োগের ক্ষেত্রে প্রার্থীকে অবশ্যই সংশ্লিষ্ট বিষয়/পদে ইনডেকস দ্বারী/ নিবন্ধন সনদদ্বারী হতে হবে। কিন্তু এখানে শুধু ১ম-১২ তমদের কথা বলা হয়েছে। ইনডেকস দ্বারীরা কি আবেদন করতে পারবে এমন কোন কথা উল্লেখ্য নেই। কারনে অনেক ইনডেকস দ্বারী শিক্ষক নিজ বাস্থ স্থান থেকে অনেক দুর দুরন্তে চাকুরী করে। মাসিক যা বেতন পায় প্রতিদিন যাতায়াত করে ক্লাশ নিতে হলে ৬ থেকে ৮ হাজার টাকা শুধু ভাড়া চলে যায় ।এমনকি প্রতিদিন যাতায়াত করে তাদের শারীরিক অবস্থাও খারাপ হয়ে যায়। যার ফলে মান সম্পন্ন শিক্ষা দানেও ব্যহত হয়।এমতাবস্থায় ইনডেকস দ্বারী শিক্ষকদেরকেও আবেদনের সুযোগ করে দেয়া উচিত।

    ReplyDelete
    Replies
    1. ইনডেক্সধারী শিক্ষকদের জন্য নতুন করে আবেদন না করে ট্রান্সফার নেয়া সুবিধাজনক হবে।

      Delete