Breaking

Translate

Monday, 10 December 2018

December 10, 2018

ফুলের ছবি, ১০০০+ ফুলের পিক ডাউনলোড করে নিন

ফুলের ছবি গোলাপ, ফুলের ছবি download




ফুলের ছবি প্রয়োজন? ফুলের ছবি ডাউনলোড করতে চান? এখানে পাবেন ১০০০+ সুন্দর গোলাপ ফুলের ছবি। অনেকেই ফেসবুকে ফুলের পিক আপলোড করতে চান। এজন্য ইন্টারনেট থেকে নিজের পছন্দের ফুলের ছবি download করে নিতে হয়। আপনার জন্য এখানে রয়েছে অসংখ্য ফুলের ছবি গোলাপ

প্রিয়জনকে ফেসবুক মেসেঞ্জার বা হোয়াটস অ্যাপে সুন্দর সুন্দর গোলাপ ফুলের ছবি hd উপহার দিতে চান? তাহলে এখান থেকেই আকর্ষণীয় সব গোলাপ ফুলের ছবি ডাউনলোড করে নিতে পারবেন।



ফেসবুক প্রোফাইল পিকচারের জন্যও আমরা অনেকেই গোলাপ ফুলের ছবি চাই

ফুলের ছবি ও নাম চাই ? এখানে বিশাল ভান্ডার থেকে ডাউনলোড করে নিন আপনার পছন্দের ফুলের ছবি

এই অসম্ভব সুন্দর সুন্দর সব ফুলের পিক আপনার মন কাড়বেই। তবে ফুলের ছবিগুলো প্রফেশনাল গ্রাফিক ডিজাইনারের মাধ্যমে কাজ করা।এতে ছবিগুলো হয়েছে আরও আকর্ষণীয়।


ফুলের পিক

ফুলের পিক

ফুলের পিক


১০০০+ ফুলের পিক ডাউনলোড করুন 

ফুলের ছবি, নাম ও পরিচিতি

ফুলের ছবি ডাউনলোড করার পাশাপাশি এখানে পাবেন ফুলের ছবি ও নাম, ফুলের পরিচিতি।পৃথিবীতে কত যে সুন্দর সুন্দর ফুল রয়েছে তার সবগুলো কি আমরা চিনি?পৃথিবীর কথা বাদই দিলাম আমাদের বাংলাদেশেই যে সব ফুল জন্মে তার সবগুলোই কি আমাদের পরিচিত?দেখা যাবে বাস্তবে ঘুরে ফিরে কয়েকটি ফুলই আমরা চিনি মাত্র!বেশিরভাগ ফুলই আমাদের অপরিচিত।দেখলেও নাম বলতে পারবোনা।

আসুন আমার মতো যারা ফুল ভালবাসেন আমরা বেশ কিছু ফুলের পরিচিতি জেনে নিই।ফুল পছন্দ করেননা এমন মানুষ নিশ্চয়ই কমই আছেন।তাহলে চলুন সচরাচর আমাদের চোখে পড়ে এমন কমন ফুল থেকেই আমাদের ফুলের পরিচয় পর্ব শুরু করা যাক!
জাতীয় ফুল শাপলা
শাপলা ফুল

শাপলা

শাপলা ফুল চেনেনা এমন কেউ বাংলাদেশে আছে বলে মনে হয়না। শাপলা আমাদের জাতীয় ফুল।ইংরেজি নাম Water lily।বাংলাদেশের খাল, বিল, হাওড়,নদী সর্বত্রই শাপলা ফুল চোখে পড়ে। এর সৌন্দর্য দেখে আমরা সবাই মুগ্ধ। সারা বিশ্বে শাপলা ফুলের প্রায় আশিটি জাত রয়েছে। এর মধ্যে সাদা শাপলা আমাদের জাতীয় ফুল হিসেবে নির্বাচন করা হয়েছে। এছাড়াও লাল শাপলা ফুলও বাংলাদেশের সর্বত্র কম বেশি চোখে পড়ে। শাপলা ফুলের সবচেয়ে বড় বৈশিষ্ট্য হলো এটি পানিতে জন্মে।জাতীয় ফুল হিসেবে বিশেষ মর্যাদার অধিকারী হওয়ায় শাপলা ফুল দিয়েই শুরু করা হলো আমাদের ফুলের পরিচিতি।
গোলাপ ফুলের ছবি ডাউনলোড করুন
গোলাপ ফুল

গোলাপ

বাংলায় গোলাপ ইংরেজিতে Rose।পৃথিবীর সবচেয়ে সুপরিচিত এবং জনপ্রিয় ফুল সম্ভবত এই গোলাপ ফুল। ফুলের রাণী হিসেবে সবাই চেনে এই গোলাপকে। সৌন্দর্য এবং ভালবাসার প্রতীক হিসেবে সবাই স্বীকৃতি দিয়েছে গোলাপ ফুলকে। নানা বর্ণের প্রায় ১০০ প্রজাতির গোলাপ রয়েছে পৃথিবীজুড়ে।তবে লাল গোলাপ সবচেয়ে সহজলভ্য।
পদ্ম ফুলের ছবি
পদ্ম ফুল

পদ্ম ফুল





Lotus বা পদ্ম হলো শাপলার মতোই আরেকটি জলজ প্রজাতির ফুল। অনেকেই একে জলজ ফুলের রাণী বলে।এটি ভারতের জাতীয় ফুল।এছাড়া হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের কাছে পদ্ম একটি পবিত্র ফুল।পদ্ম ফুলের রং লাল, সাদা এবং গোলাপীর মিশ্রণ।বর্ষাকালে পদ্ম ফুল ফোটা শুরু হয় এবং শরৎকালে বেশি পরিমাণে দেখা যায়।বাংলাদেশের সর্বত্রই যেখানে সারাবছর পানি থাকে এরকম জলাশয়ে পদ্ম ফুল ফুটতে দেখা যায়।
কদম ফুলের ছবি
কদম ফুল

কদম ফুল

বাদল দিনের প্রথম কদম ফুল করেছ দান,
আমি দিতে এসেছি শ্রাবণের গান।।
কদম ফুলের মাহাত্ম্য রবীন্দ্রনাথের মতো আর কেউ মনে হয় উপলব্ধি করতে পারেনি।বনে বাদাড়ে অবহেলায় জন্ম নেয়া এই ফুলকে নিজের গানের মাঝে নিয়ে এসে প্রকৃতি ও ফুল প্রেমীদের যেন চোখ খুলে দিয়েছেন তিনি।আষাঢ়, শ্রাবণ মাস অর্থাৎ বর্ষাকাল কদম ফুল ফোটার আদর্শ সময়। কদম ফুল আমরা সবাই চিনি।ছোট বেলায় সবাই খেলেছি এই ফুল দিয়ে।বাংলাদেশের সব অঞ্চলেই দেখা মেলে কদম ফুলের।
সূর্যমুখী ফুলের ছবি
সূর্যমুখী ফুল

সূর্যমুখী ফুল

সূর্যমুখী(Sunflower) বাংলাদেশে খুবই পরিচিত একটি ফুল।সূর্যের দিকে মুখ করে থাকে বলেই এর এমন নাম।পূর্নবয়স্ক সূর্যমুখী ফুল আকারে অনেক বড় এবং দেখতে খুবই সুন্দর।শুধু ফুল হিসেবেই এটি পরিচিত নয়। সূর্যমুখী ফুলের উপকারিতা অনেক।সূর্যমুখী ফুলের বীজ ভোজ্যতেল হিসেবেও ব্যবহৃত হচ্ছে।ভোজ্যতেল হিসেবে চাহিদা থাকায় সূর্যমুখী ফুল চাষ লাভজনক।শোনা যায় ১৯৭৫ সাল থেকেই বাংলাদেশে সূর্যমুখী ফুল চাষ করা হচ্ছে।এর মধ্যে নোয়াখালীর সুবর্ণচরে এটি ব্যাপকভাবে চাষ করা হচ্ছে।কোলেস্টেরলের মাত্রা কম থাকায় সূর্যমুখী তৈল স্বাস্থ্যের জন্য ভালো।

Saturday, 8 December 2018

December 08, 2018

সেরা ৩টি বাংলা কিবোর্ড ডাউনলোড করুন এন্ড্রোয়েড ফোনের জন্য

সহজ বাংলা কিবোর্ড ডাউনলোড করে নিন আপনার স্মার্টফোনের জন্য


বাংলা কিবোর্ড প্রয়োজন?তাহলে লেখাটি আপনার জন্যই।বর্তমানে শিক্ষিত, স্বল্প শিক্ষিত সকলের মাঝেই স্মার্টফোন ব্যবহারকারীর সংখ্যা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে।বলা যায় স্মার্টফোন এখন হাতে হাতে।সেই সাথে বাড়ছে স্মার্টফোনে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যাও।বিশেষ করে এন্ড্রোয়েড ফোন সহজলভ্য হওয়ায় এর জনপ্রিয়তা এখন তুঙ্গে।

স্মার্টফোন ব্যবহার করলে ইন্টারনেট ব্যবহার করাও যেনো বাধ্যতামূলক!আর ফেসবুক একাউন্ট তো লাগবেই!সেই সাথে হোয়াটস অ্যাপ, ইমো একেবারেই কমন অ্যাপ।ইন্টারনেটে অডিও, ভিডিও কলে কথা বলার পাশাপাশি চ্যাটিং করাও যোগাযোগের জনপ্রিয় মাধ্যম।



চ্যাটিং করতে গেলেই প্রয়োজন হয় টাইপিং করার জন্য কিবোর্ড।এন্ড্রোয়েড ফোনে সাধারণত ইংরেজি কিবোর্ড ডিফল্ট হিসেবে থাকে।অনেকেই দেখা যায় বাংলা কথা বলতে ইংরেজি কিবোর্ড ব্যবহার করে চ্যাটিং করে।চ্যাটিং না হয় শর্টকাটে এভাবে সেরে নেয়া যায় কিন্তু ফেসবুকে একটা স্ট্যাটাস শেয়ার করতে হলে কি করবেন?

ফেসবুকে বাংলাভাষীরা এখন বাংলাতেই স্ট্যাটাস দিয়ে থাকেন।আর বাংলায় টাইপ করতে হলে অবশ্যই বাংলা কিবোর্ড প্রয়োজন।ফেসবুক বা চ্যাটিং একটি উদাহরণ মাত্র। আসলে বাংলা কিবোর্ডের প্রয়োজনীয়তা অনেক।এটি মোবাইল ফোনের জন্য বর্তমানে একটি অপরিহার্য অ্যাপ।

বাংলা কিবোর্ড টাইপ করতে হলে প্রয়োজন বাংলা কিবোর্ড apps।বাংলা কিবোর্ডের কোনো অভাব নেই।বাংলা কিবোর্ড ডাউনলোড করা খুবই সহজ।এখানে আমরা শেয়ার করেছি সেরা তিনটি সহজ বাংলা কিবোর্ড।

এন্ড্রোয়েড অ্যাপস তৈরি এখন খুবই সহজ।এজন্য অ্যাপস তৈরি করে বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে অর্থ উপার্জনের জন্য অসংখ্য অ্যাপস তৈরি হচ্ছে প্রতিনিয়ত।বেশিরভাগ অ্যাপসই নিম্নমানের।প্রতিটি অ্যাপস ডাউনলোড করে যাচাই করে দেখতে প্রচুর সময়ের প্রয়োজন।বাংলা কিবোর্ড খুবই প্রয়োজনীয় একটি এন্ড্রোয়েড অ্যাপ।এখানে শুধুমাত্র বাছাইকৃত চারটি বাংলা কিবোর্ড apps ডাউনলোড করার লিংক শেয়ার করা হলো।আশাকরি এতে পাঠকের উপকার হবে এবং অনেক মূল্যবান সময় বাঁচবে।এরমধ্যে যেটি আপনার পছন্দ হয় সেটি ব্যবহার করতে পারেন।

মায়াবী কিবোর্ড ডাউনলোড





বাংলা কিবোর্ড এর মধ্যে আমি নিজে পছন্দের তালিকায় মায়াবী কিবোর্ডকে এক নম্বরে রেখেছি।প্রথম থেকেই এই কিবোর্ডটি ব্যবহার করছি।এটিই আমার কাছে সবদিক থেকে সুবিধাজনক মনে হয়।এর সহজ ইন্টারফেস এবং বর্ণমালা এমনভাবে সাজানো যে টাইপ করতে হলে অক্ষর খুঁজে বেড়াতে হয়না।কয়েকদিন ব্যবহার করলে যে কেউ অনুভব করতে পারবেন যে এটিই সবচেয়ে সহজ বাংলা কিবোর্ড।এটি দিয়েই ফোনে বাংলা টাইপিং করা বেশি সহজ।এমনকি এই লেখাটিও লেখা হয়েছে মায়াবী বাংলা কিবোর্ড দিয়ে।বাংলা কিবোর্ড হলেও এতে ইংরেজি টাইপ করার সুবিধাও যুক্ত রয়েছে।মায়াবী কিবোর্ডের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে ১২ই এপ্রিল ২০১১ সালে প্রকাশিত তথ্যমতে অ্যাপসটি পাবলিস হওয়ার প্রথম তিন সপ্তাহের মধ্যেই ৫০০ ডাউনলোড হয়েছিলো এবং এর মধ্যে বেশিরভাগ ডাউনলোড হয়েছিলো ইংল্যান্ড থেকে।বর্তমানে গুগল প্লে স্টোরের তথ্যমতে এটি ডাউনলোড হয়েছে 1 Million +! Mayabi Soft এর তৈরি কিবোর্ডটি ডাউনলোড করতে পারেন Google Play Store থেকে।

  • App Developer : Mayabi Soft
  • Rating : 4.2
  • Review : 20k
  • Download : 1M+
সহজ বাংলা কিবোর্ড ডাউনলোড করুন

(চলবে) 

Friday, 7 December 2018

December 07, 2018

জেএসসি রেজাল্ট ২০১৮ জেডিসি রেজাল্ট ২০১৮ দেখুন সবার আগে সবচেয়ে দ্রুত

অস্টম শ্রেণীর শিক্ষার্থীদের জেএসসি পরীক্ষা ২০১৮ এবং জেডিসি পরীক্ষা ২০১৮ শেষ হয়েছে। এখন অপেক্ষা জেএসসি রেজাল্ট ২০১৮ এবং জেডিসি রেজাল্ট ২০১৮ এর। এ বছর ১লা নভেম্বর শুরু হওয়া জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি)  এবং জুনিয়র দাখিল সার্টিফিকেট (জেডিসি) পরীক্ষা শেষ হয় ১৫ নভেম্বর।

বাংলাদেশে নবম বারের মতো অনুষ্ঠিত হওয়া এবারের জেএসসি / জেডিসি পরীক্ষায় অংশ নেয় মোট ২৬ লক্ষ ৭০ হাজার ৩৩৩ জন পরীক্ষার্থী। দেশব্যাপী দুই হাজার নয়শত তিনটি কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত হওয়া এ পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করেছে ২৯ হাজার ৬৭৭ টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী।
পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারী সকল ছাত্র ছাত্রী এবং তাদের অভিভাবকবৃন্দ অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছেন জেএসসি রেজাল্ট ২০১৮ জানার জন্য।

জেএসসি রেজাল্ট ২০১৮ এবং জেডিসি রেজাল্ট ২০১৮ কবে দিবে?




পরীক্ষা দেয়ার পর সকল পরীক্ষার্থী এবং তাদের অভিভাবকদের প্রশ্ন কবে দিবে জেএসসি ফলাফল 2018 এবং জেডিসি ফলাফল 2018? তবে এখনো পর্যন্ত এ প্রশ্নের সঠিক জবাব পাওয়া যায়নি। মনে করা হচ্ছে জাতীয় নির্বাচনের আগেই অর্থাৎ ৩০শে ডিসেম্বরের আগেই প্রকাশিত হবে জে এস সি রেজাল্ট ২০১৮ এবং জে ডি সি রেজাল্ট ২০১৮। নিশ্চিত তারিখ জানা মাত্রই তা আমরা সমকাল ব্লগের পাঠকদের জানিয়ে দেবো। এজন্য নিয়মিত চোখ রাখুন আমাদের সমকাল ব্লগে।

কিভাবে দেখবেন jsc রেজাল্ট 2018 এবং jdc রেজাল্ট 2018?

জে এস সি ফলাফল ২০১৮ এবং জে ডি সি ফলাফল ২০১৮ প্রকাশিত হওয়ার পর পরীক্ষার্থীরা নিজ নিজ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকেই তাদের ফলাফল জেনে নিতে পারবে। তবে বর্তমানে অনলাইনের যুগে সবাই সবকিছু দ্রুত পেতে চায়। এজন্য পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ হওয়ার সাথে সাথেই সবাই ইন্টারনেটে তা দেখতে চায়। কিন্তু ইন্টারনেটে পরীক্ষার ফলাফল উন্মুক্ত করে দেয়া হয় দুপুর ২টার পরে। এর আগে এসএমএসের মাধ্যমে মোবাইল ফোনে রেজাল্ট দেখার অপশন‌টি উন্মুক্ত করে দেয়া হয় দুপুর ১২টার পরে। আর মার্কশিট সহ পরীক্ষার ফলাফল দেখা যায় বিকেল ৪টার পর। সুতরাং বলা যায় জেএসসি রেজাল্ট দেখা যাবে তিনটি পদ্ধতিতে।
  • নিজ নিজ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে
  • মোবাইল ফোনে এসএমএসের মাধ্যমে
  • অনলাইনে

মোবাইল ফোনে এসএমএসের মাধ্যমে জেএসসি ফলাফল ২০১৮, জেডিসি ফলাফল ২০১৮ দেখার নিয়ম

রেজাল্ট প্রকাশিত হওয়ার দিনে দুপুর বারোটার পর থেকেই মোবাইল ফোনে এসএমএসের মাধ্যমে রেজাল্ট দেখা যাবে। সাধারণত রেজাল্ট প্রকাশের আগেই govt info মেসেজের মাধ্যমে সকলের মোবাইল ফোনে এসএমএসের মাধ্যমে রেজাল্ট দেখার নিয়ম জানিয়ে দেয়া হয়। তবুও পাঠকদের জন্য আমরা শেয়ার করলাম কিভাবে মোবাইল ফোন থেকে এসএমএসের মাধ্যমে জেএসসি রেজাল্ট দেখতে হয়।

জে এস সি রেজাল্ট ২০১৮

জেএসসি পরীক্ষার ফলাফল এসএমএসের মাধ্যমে দেখতে প্রথমে ফোনের মেসেজ অপশনে টাইপ করতে হবে JSC এরপর একটি স্পেস দিয়ে নিজের বোর্ডের নামের প্রথম তিনটি অক্ষর টাইপ করে স্পেস দিয়ে রোল নম্বর দিয়ে আবার স্পেস দিয়ে পরীক্ষার সাল 2018 টাইপ করে 16222 নম্বরে সেন্ড করতে হবে।



যেমনঃ JSC SYL 012345 2018 
এসএমএস পাঠানোর পর ফিরতি এসএমএসের মাধ্যমে রেজাল্ট পাওয়া যাবে। তবে সার্ভারের ত্রুটির কারণে অনেক সময় রেজাল্ট আসতে অনেক দেরি করে। এজন্য ঘাবড়ানো যাবেনা।

জে ডি সি রেজাল্ট ২০১৮

জেডিসি রেজাল্ট মোবাইল ফোনে দেখার জন্যও একই পদ্ধতি অনুসরণ করতে হবে। তবে শুধু JSC এর জায়গায় JDC লিখতে হবে এবং বোর্ডের জায়গায় মাদ্রাসা বোর্ডের সংক্ষিপ্ত রূপ MAD লিখতে হবে। বাকি সবকিছু জেএসসি এর মতই হবে।
 যেমনঃ JDC MAD 012345 2018 

সকল বোর্ডের নামের প্রথম তিনটি অক্ষর লেখার নিয়ম

  1. ঢাকা বোর্ড DHA
  2. কুমিল্লা বোর্ড COM
  3. চট্টগ্রাম বোর্ড CHI
  4. রাজশাহী বোর্ড RAJ
  5. জশোর বোর্ড JES
  6. বরিশাল বোর্ড BAR
  7. সিলেট বোর্ড SYL
  8. দিনাজপুর বোর্ড DIN
  9. টেকনিক্যাল বোর্ড TEC
  10. মাদ্রাসা বোর্ড MAD

জেএসসি রেজাল্ট ২০১৮ এবং জেডিসি রেজাল্ট ২০১৮ অনলাইনে দেখার নিয়ম

জেএসসি রেজাল্ট প্রকাশিত হওয়ার সাথে সাথেই সবাই অনলাইনে রেজাল্ট দেখার জন্য চেষ্টা করে। ফলে অতিরিক্ত ভিজিটরের কারণে সার্ভার ডাউন হয়ে যায়। এতে অনেক ভোগান্তির শিকার হতে হয় পরীক্ষার্থীদের।প্রথমে রেজাল্ট দেখার জন্য অফিসিয়াল ওয়েবসাইটেই চেষ্টা করে দেখতে হবে।

 জেএসসি রেজাল্ট ২০১৮ সরাসরি দেখুন 

অফিসিয়াল ওয়েবসাইট ডাউন দেখালে অর্থাৎ রেজাল্ট দেখতে সমস্যা হলে বিকল্প উপায় রয়েছে। প্রতিটি শিক্ষা বোর্ডের একটি করে নিজস্ব ওয়েবসাইট রয়েছে। প্রতিটি শিক্ষা বোর্ডের ওয়েবসাইটেও আলাদা করে জেএসসি রেজাল্ট দেখা যাবে। এজন্য প্রত্যেক পরীক্ষার্থীর নিজ নিজ শিক্ষা বোর্ডের অফিশিয়াল ওয়েবসাইটে ঢুকে রেজাল্ট দেখতে হবে। নিচে পরীক্ষার্থীদের সুবিধার জন্য প্রতিটি শিক্ষা বোর্ডের রেজাল্ট দেখার পেইজের লিংক দেয়া হলো।

 ঢাকা বোর্ডের জেএসসি রেজাল্ট এবং মার্কশিট 


 রাজশাহী বোর্ডের জেএসসি রেজাল্ট ও মার্কশিট 


 চট্টগ্রাম বোর্ডের জেএসসি রেজাল্ট ও মার্কশিট 


 কুমিল্লা বোর্ডের জেএসসি রেজাল্ট ও মার্কশিট 


 যশোর বোর্ডের জেএসসি রেজাল্ট ও মার্কশিট 


 দিনাজপুর বোর্ডের জেএসসি রেজাল্ট ও মার্কশিট 


 বরিশাল বোর্ডের জেএসসি রেজাল্ট ও মার্কশিট 


 সিলেট বোর্ডের জেএসসি রেজাল্ট ও মার্কশিট 


 মাদ্রাসা বোর্ডের জেডিসি রেজাল্ট ২০১৮ 

অনলাইনে জেএসসি পরীক্ষার রেজাল্ট দেখার জন্য নির্দিষ্ট ওয়েবসাইটে গিয়ে প্রথমে পরীক্ষার ধরন অর্থাৎ JSC/JDC সিলেক্ট করতে হবে।
  • এরপর পরীক্ষার সাল অর্থাৎ 2018 সিলেক্ট করতে হবে।
  • এরপর স্ব স্ব বোর্ড নির্বাচন করে দিতে হবে।
  • পরবর্তী ঘরে রোল নম্বর দিতে হবে।
  • রেজিস্ট্রেশন নম্বরের ঘরটিতে সঠিকভাবে পরীক্ষার রেজিস্ট্রেশন নম্বর বসাতে হবে।
  • সর্বশেষে সংখ্যার ক্যাপচা কোড দিয়ে সাবমিট বাটনে ক্লিক করলেই কাঙ্ক্ষিত রেজাল্ট দেখা যাবে।
  • আবার একইভাবে আরেকজন পরীক্ষার্থীর জেএসসি রেজাল্ট দেখতে হলে প্রথমে রিসেট বাটনে ক্লিক করে প্রথম থেকে শুরু করে সবগুলো ঘর পূরন করে সাবমিট বাটনে ক্লিক করতে হবে।




উল্লেখ্য যে মার্কশীট সহ জেএসসি /জেডিসি রেজাল্ট দেখতে হলে তা বিকেল চারটার পরে দেখতে হবে।আরো পড়ুন : পিএসসি রেজাল্ট ২০১৮

জেএসসি রেজাল্ট ২০১৮, জেডিসি রেজাল্ট ২০১৮ গ্রেডিং সিস্টেম

প্রাপ্ত নম্বর 0-32 গ্রেড পয়েন্ট 0.00 গ্রেড F

প্রাপ্ত নম্বর 33-39 গ্রেড পয়েন্ট 1.00 গ্রেড D

প্রাপ্ত নম্বর 40-49 গ্রেড পয়েন্ট 2.00 গ্রেড C

প্রাপ্ত নম্বর 50-59 গ্রেড পয়েন্ট 3.00 গ্রেড B

প্রাপ্ত নম্বর 60-69 গ্রেড পয়েন্ট 3.50 গ্রেড A -

প্রাপ্ত নম্বর 70-79 গ্রেড পয়েন্ট 4.00 গ্রেড A

প্রাপ্ত নম্বর 80-100 গ্রেড পয়েন্ট 5.00 গ্রেড A +
সকল বোর্ডের জেএসসি /জেডিসি রেজাল্ট ডাউনলোড
জেএসসি রেজাল্ট ২০১৮

December 07, 2018

এনটিআরসিএ মেধা তালিকা|১ম-১৪তম|আপডেট করা হয়েছে

এনটিআরসিএ জাতীয় মেধা তালিকা হালনাগাদ করা হয়েছে



এনটিআরসিএ জাতীয় মেধাতালিকা সর্বপ্রথম প্রকাশিত হয় ১০ই জুলাই ২০১৮।এতে ১ম থেকে ১৩তম নিবন্ধন পরীক্ষায় উত্তীর্ণ সকল নিবন্ধনকারীর নাম অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।ধারণা করা হচ্ছিল বেসরকারি শিক্ষক নিয়োগ ২০১৮ সম্পন্ন করা হবে শুধুমাত্র ১ম-১৩মম নিবন্ধনকারীদের নিয়েই।

কিন্তু ntrca সর্বশেষ খবর হলো এনটিআরসিএ মেধা তালিকা সম্প্রতি হালনাগাদ করা হয়েছে।এতে চতুর্দশ শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষায় উত্তীর্ণ নিবন্ধনকারীদের অন্তর্ভুক্ত করে এনটিআরসিএ এর মেধাতালিকা আপডেট করা হয়েছে।

গত ২৭শে নভেম্বর ২০১৮ প্রকাশিত হয়েছে ১৪তম নিবন্ধন পরীক্ষা ২০১৭ এর চূড়ান্ত ফলাফল।এতে উত্তীর্ণ হয়েছে ১৮ হাজার ৩১২ জন নিবন্ধনকারী।এর পরপরই হালনাগাদ করা হলো ntrca মেধাতালিকা।

ntrca এর মেধাতালিকা আপডেট হওয়ার পর ১ম-১৩তম নিবন্ধনকারী অনেকের কাছ থেকেই শোনা গেছে যে মেধাতালিকায় তাদের অবস্থানের অবনতি হয়েছে।১৪তম নিবন্ধনকারীদের মধ্যে যাদের নম্বর বেশি তারা এন টি আর সি এ মেধা তালিকা য় উপরের দিকে অবস্থান করছেন।





আদালতের রায় অনুযায়ী প্রতিটি নিবন্ধন পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশিত হওয়ার পর বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কতৃপক্ষ আপডেট করবে এনটিআরসিএ মেরিট লিস্ট।ntrca মেধাতালিকা ২০১৮ অনুযায়ী আপনার বর্তমান অবস্থান জানতে ভিজিট করুন http://ngi.teletalk.com.bd/ntrca/merit/ ওয়েবসাইট।

এনটিআরসিএ শিক্ষক নিয়োগ বিষয়ে একজন উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারের সাক্ষাৎকার নেয়া হয়েছিলো বেশ কিছুদিন পূর্বে। যদিও সাক্ষাৎকারটি বেশ পুরোনো তবুও বেশকিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাওয়া গিয়েছিলো সেই সাক্ষাৎকারে। সাক্ষাৎকারটি নিম্নরূপ :

বর্তমানে সকল নিবন্ধনকারীর প্রশ্ন, কবে কখন বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষক নিয়োগ দেবে NTRCA, কখন সার্কুলার বা গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশ হবে , শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর কাছে শুন্য পদের তালিকা চেয়েছে কিনা NTRCA ইত্যাদি।এসব বিষয় নিয়েই আজ কথা বলতে গিয়েছিলাম হবিগঞ্জের বানিয়াচং উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার জনাব মোঃ কাওসার শোকরানার সঙ্গে। উল্লেখ্য বর্তমানে হবিগঞ্জের বানিয়াচং বিশ্বের বৃহত্তম গ্রাম। উপজেলা শিক্ষা অফিসারের সাথে আলোচনা করে যে তথ্যগুলো বেরিয়ে আসলো তাই এখন তুলে ধরছি পাঠকদের কাছে।

পরিচয় পর্ব এবং সৌজন্য বিনিময় সারার পরেই জিজ্ঞেস করলাম NTRCA থেকে তাঁদের কাছে, বেসরকারি মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর শূন্যপদের তথ্য চেয়ে কোনো চিঠি এসেছে কিনা?

এনটিআরসিএ মেধা তালিকা ২০১৮
উপজেলা শিক্ষা অফিসার কাওসার শোকরানা

এখানে উল্লেখ্য যে অনেকেই বলছেন আগামী ২৬শে জুলাইয়ের মধ্যে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোকে শুন্য পদের তালিকা দিতে বলেছে NTRCA
আসলে এ তথ্য সম্পূর্ণ সঠিক নয়। তাঁর সাথে কথা বলে জানতে পারলাম শিক্ষা অফিসে চিঠি এসেছে ঠিকই এবং আগামী ২৬শে জুলাইয়ের মধ্যেই তথ্য চেয়েছে NTRCA। তবে সে চিঠি শুন্য পদের তালিকা চেয়ে নয় বরং সকল বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধানগণের নাম এবং ফোন নম্বর চেয়ে। এই তথ্যগুলো পাওয়ার পরেই সকল বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধানগণের নিকট শুন্য পদের চাহিদা চাইবে NTRCA। এর পরে হবে গণবিজ্ঞপ্তি।




জিজ্ঞেস করলাম কবে নাগাদ নিয়োগ হতে পারে বলে আপনার ধারণা? উত্তরে তিনি বললেন এটা তো জুলাই মাস চলছে, আশা করছি আগামী সেপ্টেম্বর অক্টোবর মাসের মধ্যে একটি নিয়োগ সম্পন্ন হয়ে যাবে।

কথায় কথায় তিনি জানালেন গত ২০১৬ সালে ইরিকুইজিসনের সময় অনেক প্রতিষ্ঠান প্রধান ভুলক্রমে সৃষ্ট পদগুলোও শুন্য পদ হিসেবে দেখিয়েছিলেন। অথচ সৃষ্ট পদের এমপিও হয়না। ফলে যারা সেই সব পদে NTRCA থেকে নিয়োগের সুপারিশ পেয়েছিলেন তারা এমপিও পাননি। এজন্য এবারে বিষয়টি মাথায় রেখে সতর্কতার সাথে শুন্য পদের চাহিদা দিতে হবে প্রতিষ্ঠান প্রধানদের।

এরপর তার কাছে শুনে নিলাম বানিয়াচং উপজেলায় কতগুলো বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। প্রতিষ্ঠানগুলোর শুন্য পদের সংখ্যাও জেনে নিলাম। তবে তাঁর কাছে যে তথ্য রয়েছে তা ২৪/০৬/২০১৭ তারিখের। এতে দেখা যাচ্ছে এমপিওভুক্ত কলেজ রয়েছে দুটি। আলিম মদ্রাসা রয়েছে একটি। এমপিওভুক্ত মাধ্যমিক উচ্চবিদ্যালয় ২২টি। দাখিল মাদ্রাসা রয়েছে ৩টি। 
কিন্তু এতোগুলো প্রতিষ্ঠানে শুন্যপদ রয়েছে মাত্র ২৩টি। জিজ্ঞেস করলাম এটাতো একবছর আগের তথ্য। বিগত একবছরে আর শুন্যপদ বাড়েনি? তিনি বললেন বড়জোর দু তিনটি বাড়তে পারে। তবে ননএমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ মোট শুন্য পদের সংখ্যা হবে প্রায় ৭২।

আরো পড়ুন : ntrca নিয়োগ

এরচেয়ে বেশি তথ্য জানা সম্ভব নয় বুঝতে পেরে ধন্যবাদ জানিয়ে চলে আসতে চাইলাম কিন্তু ভদ্রলোক অমায়িক। আপ্যায়ন না করে ছাড়তে চাইলেন না।চমৎকার একটি পানীয় পান করালেন অনেকটা রুহ আফজার মতো দেখতে! তবে চিনতে পারলাম না। মনে হয় কোনো ধরনের ফ্রুট জুস হবে।অতঃপর কৃতজ্ঞতা জানিয়ে বিদায় নিলাম।



আসলে যুগান্তর পত্রিকার হবিগঞ্জের বানিয়াচং উপজেলার স্থানীয় প্রতিনিধি সোহেল ভাইয়ের সাথে দেখা হয়েছিলো আজ। বললাম চলেন একসঙ্গে একটি রিপোর্ট করে ফেলি! আপনি দেবেন যুগান্তরে আমি দেবো আমার সমকালে! জিজ্ঞেস করলেন কি বিষয়ে? বললাম NTRCA এবং বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষক নিয়োগ প্রসঙ্গে। বললেন ঠিক আছে ভালোই হবে! ব্যাস্ত থাকায় বললেন আপনি আগে শিক্ষা অফিস থেকে তথ্য নিয়ে আসেন। সেখান থেকেই এই রিপোর্টের সূত্রপাত!

আরো পড়ুন : নিবন্ধন পরীক্ষায় অংশগ্রহনের সর্বোচ্চ বয়স ৩৫ নাকি চাকুরীতে প্রবেশের সর্বোচ্চ বয়স ৩৫? 


Thursday, 6 December 2018

December 06, 2018

পিএসসি রেজাল্ট ২০১৮ দেখুন সবার আগে সবচেয়ে দ্রুত

পিএসসি রেজাল্ট ২০১৮ কবে প্রকাশ করা হবে তা এখনো আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষণা করা হয়নি। ঘোষণা করার সাথে সাথেই তা আমাদের সমকাল ব্লগে জানিয়ে দেয়া হবে। সেইসাথে প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষার ফলাফল ২০১৮ খুব সহজেই দেখার জন্য চোখ রাখুন আমাদের ওয়েবসাইটে।

গত ১৮ই নভেম্বর সারা দেশে ১০ম বারের মতো শুরু হয়েছিলো পিএসসি পরীক্ষা ২০১৮। পরীক্ষা শেষ হয়েছে ২৬শে নভেম্বর ২০১৮। এবছর প্রাথমিক ও ইবতেদায়ী সমাপনী পরীক্ষায় প্রায় ৩১ লক্ষ শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করে। পরীক্ষা শেষ এখন অপেক্ষা পিএসসি রেজাল্ট ২০১৮ এর।




বরাবরের মতোই পিএসসি পরীক্ষার ফলাফল ২০১৮ প্রকাশিত হওয়ার সাথে সাথে সকল অভিভাবকই নিশ্চয়ই চাইবেন দ্রুত পরীক্ষার ফলাফল জানতে। সবার আগে এবং দ্রুত রেজাল্ট দেখতে হলে পুরো লেখাটি পড়ুন।

পিএসসি রেজাল্ট ২০১৮ এবং ইবতেদায়ী রেজাল্ট ২০১৮ দেখার উপায়

p.s.c পরীক্ষার ফলাফল ২০১৮ নিজ নিজ পরীক্ষা কেন্দ্রে পৌঁছানোর আগেই দ্রুত দেখার দুটি উপায় রয়েছে।
  • অনলাইন
  • এসএমএস

পিএসসি রেজাল্ট ২০১৮ দেখুন এসএমএস দিয়ে

মোবাইল ফোনে এসএমএসের মাধ্যমে রেজাল্ট দেখতে প্রথমে DPE লিখে স্পেস দিয়ে পরীক্ষার্থীর স্টুডেন্ট আইডি লিখে আবার স্পেস দিয়ে পাসের বছর লিখে মেসেজটি 16222 নম্বরে সেন্ড করতে হবে।
DPE< space>পরীক্ষার্থীর স্টুডেন্ট আইডি <space>পাশের বছর Send 16222।
মাদ্রাসা বোর্ডের ইবতেদায়ী সমাপনী পরীক্ষার রেজাল্ট ২০১৮ দেখার জন্য শুধু DPE এর জায়গায় EBT লিখতে হবে। বাকি সব নিয়ম একই থাকবে।
EBT<space> পরীক্ষার্থীর স্টুডেন্ট আইডি<space>পাশের বছর Send 16222।

পিএসসি রেজাল্ট ২০১৮ দেখুন অনলাইনে

অনলাইনে প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষার রেজাল্ট ২০১৮ দেখার জন্য প্রথমে নিচের ওয়েবসাইট দুটির যে কোনো একটিতে যেতে হবে।
  1. http://dperesult.teletalk.com.bd/dpe.php
  2. http://180.211.137.51:5839

প্রথম ওয়েবসাইটে গিয়ে শুধু Passing year 2018 সিলেক্ট করে পরীক্ষার প্রবেশপত্রে উল্লেখিত  Student ID নির্দিষ্ট ঘরে বসিয়ে Submit বাটনে ক্লিক করলেই চলে আসবে কাঙ্ক্ষিত রেজাল্ট।
দ্বিতীয় ওয়েবসাইটে রেজাল্ট দেখতে হলে
  • প্রথমে পরীক্ষার নাম প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা অথবা ইবতেদায়ি শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা নির্বাচন করতে হবে।
  • পরীক্ষার সন ২০১৮ নির্বাচন করতে হবে।
  • বিভাগের ঘরে নিজ বিভাগ নির্বাচন করতে হবে।
  • জেলা নির্বাচন করতে হবে।
  • উপজেলা /থানা নির্বাচন করতে হবে।
  • সর্বশেষ রোল নম্বর দিয়ে সমর্পণ করুন বাটনে ক্লিক করলেই কাঙ্ক্ষিত রেজাল্ট দেখা যাবে।
  • একটি রেজাল্ট দেখার পরে আরেকজনের রেজাল্ট দেখতে হলে পুনঃস্থাপন করুন বাটনে ক্লিক করলেই পূর্বের অবস্থানে ফিরে আসবে।



এভাবে খুব সহজেই দেখা যাবে প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা এবং ইবতেদায়ী শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষার ফলাফল।
পিএসসি রেজাল্ট ২০১৮ এর গ্রেডিং সিস্টেম জেএসসি রেজাল্ট ২০১৮ এর মতোই।
পিএসসি রেজাল্ট ২০১৮
পিএসসি রেজাল্ট ২০১৮



Tuesday, 4 December 2018

December 04, 2018

১৫তম শিক্ষক নিবন্ধন সার্কুলার ২০১৮ | আবেদন শুরু ৫ই ডিসেম্বর থেকে

এনটিআরসিএ ১৫তম শিক্ষক নিবন্ধন সার্কুলার ২০১৮




১৫তম শিক্ষক নিবন্ধন সার্কুলার ২০১৮ প্রকাশ করেছে NTRCA (বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন এবং প্রত্যয়ন কতৃপক্ষ)।কালের কন্ঠ পত্রিকার পক্ষ থেকে এনটিআরসিএ চেয়ারম্যান এস এম আশফাক হুসেনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি পত্রিকাটিকে জানিয়েছিলেন ডিসেম্বর ২০১৮ এর প্রথম সপ্তাহেই প্রকাশিত হবে ১৫তম শিক্ষক নিবন্ধন সার্কুলার।বলা হয়েছিলো বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের সাথে সাথেই আবেদন প্রক্রিয়া সহ বিস্তারিত আলোচনা করা হবে আমাদের সমকাল ব্লগে।

২৮শে নভেম্বর ২০১৮ পঞ্চদশ শিক্ষক নিবন্ধনের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে ntrca। বলা হয়েছে ৫ই ডিসেম্বর বিকেল ৩.০০ থেকে ২৬শে ডিসেম্বর সন্ধ্যা ৬.০০ পর্যন্ত চলবে আবেদন প্রক্রিয়া। আবেদন ফী নির্ধারণ করা হয়েছে ৩৫০ টাকা। আবেদনের নিয়ম বিস্তারিত বর্ণনা করা হয়েছে বিজ্ঞপ্তিটিতে। এনটিআরসিএ অফিসিয়াল ওয়েবসাইট থেকে ১৫তম শিক্ষক নিবন্ধন বিজ্ঞপ্তি ডাউনলোড করে নিন।

এদিকে মঙ্গলবার ২৭ নভেম্বর প্রকাশিত হয়েছে ১৪তম নিবন্ধনের চূড়ান্ত মৌখিক পরীক্ষার ফলাফল।এতে ১৮ হাজার ৩১২ জন প্রার্থী উত্তীর্ণ হয়েছেন। উত্তীর্ণদের মধ্যে রয়েছেন স্কুল পর্যায়ে ১৪ হাজার ১৭৮ জন, স্কুল-২ পর্যায়ে ৫৫৪ জন  এবং কলেজ পর্যায়ে ৩ হাজার ৫৮০ জন।

১২তম শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষা থেকে নিবন্ধন পরীক্ষায় কিছু পরিবর্তন এনেছে এনটিআরসিএ। এর পূর্বে প্রিলিমিনারি এবং লিখিত পরীক্ষা একদিনে এবং এক সঙ্গেই নেয়া হতো।




১২তম নিবন্ধন পরীক্ষা থেকে প্রিলিমিনারি এবং লিখিত পরীক্ষা আলাদাভাবে নেয়া হচ্ছে। বিসিএসের আদলে প্রথমে ১০০ নম্বরের প্রিলিমিনারি পরীক্ষায় পাস করতে হয়। এরপর লিখিত পরীক্ষায় অংশগ্রহণের সুযোগ পাওয়া যায়। আবার ১৩তম নিবন্ধন পরীক্ষা থেকে প্রিলিমিনারি, লিখিত পরীক্ষার পর আবার ভাইবা বা মৌখিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়া বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। নতুন নিয়ম অনুযায়ী প্রিলিমিনারি, লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়ার পরই পাওয়া যাবে নিবন্ধনের চূড়ান্ত সনদপত্র।বেসরকারি এমপিওভুক্ত অথবা নন এমপিও স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসায় শিক্ষক পদে চাকুরী করতে হলে NTRCA প্রদত্ত এই নিবন্ধন সনদপত্র অর্জন করা বাধ্যতামূলক।

বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়াতেও এসেছে ব্যাপক পরিবর্তন। পূর্বে এসব প্রতিষ্ঠানে শিক্ষক নিয়োগ দেয়ার চূড়ান্ত এক্তিয়ার ছিলো প্রতিষ্ঠানের ম্যানেজিং কমিটির হাতে। বর্তমানে ২০১৬ সাল থেকে বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নিয়োগের সুপারিশের ক্ষমতা দেয়া হয়েছে এনটিআরসিএ 'র কাছে।





নিবন্ধন পরীক্ষায় প্রাপ্ত নম্বরের ভিত্তিতে তৈরি  মেধাতালিকা অনুযায়ী নিয়োগের সুপারিশ করবে NTRCA। এজন্য নিবন্ধন পরীক্ষায় প্রাপ্ত নম্বর এখন বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষক হওয়ার জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষক নিয়োগের সম্পূর্ণ প্রক্রিয়াটি জানতে পড়ুনঃ

এজন্য বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষক হতে চাইলে নিবন্ধন পরীক্ষায় ভালো নম্বর পাওয়ার জন্য পরিপূর্ণ প্রস্তুতির প্রয়োজন।নিবন্ধন পরীক্ষার প্রস্তুতিতে সহায়তার জন্য আমাদের ওয়েবসাইটে বিস্তারিত গাইডলাইন প্রকাশ করা হবে যদি আপনারা চান।এজন্য কমেন্ট করে আপনার মতামত জানাতে পারেন।নিবন্ধন পরীক্ষা এবং বেসরকারি শিক্ষক নিয়োগের সর্বশেষ তথ্য জানতে নিয়মিত আমাদের ওয়েবসাইট ভিজিট করুন।আমাদের পরামর্শ হলো যারা ১৫তম নিবন্ধন পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে চান তারা আবেদনের শেষ তারিখ অর্থাৎ ২৬শে ডিসেম্বরের অপেক্ষা না করে যত দ্রুত সম্ভব আবেদন করে ফেলুন।কারণ অতীতের অভিজ্ঞতা থেকে জানা যায় ntrca এর ওয়েবসাইট অনেকসময় ডাউন হয়ে যায়।ফলে চাইলেও নিজের ইচ্ছেমত সময়ে আবেদন করা সম্ভব নাও হতে পারে।
NTRCA ১৫৩ম নিবন্ধন পরীক্ষার বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ!


 আবেদন করুন এখনই 

Sunday, 2 December 2018

December 02, 2018

শার্লক হোমস একটি কালজয়ী গোয়েন্দা চরিত্র|পড়ুন শার্লক হোমস pdf

পৃথিবীর সেরা কাল্পনিক গোয়েন্দা চরিত্র শার্লক হোমসের গোয়েন্দা গল্প pdf download করুন ।



শার্লক হোমস এমনই এক কাল্পনিক চরিত্রের নাম যার জনপ্রিয়তা তার স্রস্টা স্যার আর্থার কোনান ডয়েলকেও হার মানিয়েছে! শার্লক হোমস বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় এবং আলোচিত গোয়েন্দা চরিত্র। ব্রিটিশ এ গোয়েন্দা চরিত্রের স্রস্টা স্যার আর্থার কোনান ডয়েল। শার্লক হোমসকে নিয়ে মোট চারটি উপন্যাস এবং ছাপ্পান্নোটি ছোট গল্প লেখেন তিনি। এমন মন্ত্রমুগ্ধ হয়ে পড়েছি তার সবগুলো কাহিনী যা ভাষায় প্রকাশ করার মতো নয়। ছোটবেলা থেকেই গোয়েন্দা গল্পের প্রতি বিশেষ টান ছিলো! বলা যায় ভুতের গল্প থেকে প্রোমোশন নিয়ে গোয়েন্দা গল্পে পদার্পন! ঘটনাচক্রে শার্লক হোমসের সাথে পরিচয়! আর যায় কোথায়! শার্লক হোমস অমনিবাস কিনে তারিয়ে তারিয়ে রোমাঞ্চকর গোয়েন্দা কাহিনীর স্বাদ উপভোগ করা, সত্যিই জীবনে যতো বই পড়ে আনন্দ পেয়েছি তারমধ্যে শার্লক হোমসের গোয়েন্দা গল্প অতুলনীয়।
উনবিংশ শতাব্দীতে সৃষ্ট একটি চরিত্র অথচো এখনো সারাবিশ্বে তাঁর জনপ্রিয়তা, গ্রহনযোগ্যতা এতোটুকুও ম্লান হয়নি। মৌলিক গোয়েন্দা কাহিনীর চরিত্র হিসেবে কালজয়ী হয়েছে। আমাদের বাংলা ভাষার অনেক বরেণ্য সাহিত্যিকও শার্লক হোমসকে গুরু মেনে তাঁর আদলে গোয়েন্দা চরিত্র সৃষ্টির চেষ্টা করেছেন এবং কেউ কেউ সফলও হয়েছেন। যেমন উদাহরণ হিসেবে সত্যজিৎ রায়ের ফেলুদা বা শরদিন্দু বন্দ্যোপাধ্যায়ের ব্যোমকেশ বক্সীর নাম উল্লেখযোগ্য।
আমরা পাঠকরা অনেক গল্প উপন্যাসই পড়ে থাকি! এর অনেক চরিত্রই আমাদের আনন্দ দেয়, মুগ্ধ করে। কিন্তু খুব কম চরিত্রই শার্লক হোমসের মতো এমন জাদুকরি হয় যাদেরকে বিশ্বব্যাপী মানুষ যুগ যুগ ধরে অনুসরণ করতে চায়! বিশ্বজুড়ে অসংখ্য পাঠকের কল্পনার নায়ক এই শার্লক হোমস। প্রত্যেকের পছন্দের ধরন অবশ্যই আলাদা। তবে প্রত্যেকেরই কোনো না কোনো পছন্দের চরিত্র আছে চলচ্চিত্রে, নাটকে বা গল্প,উপন্যাসে যাকে সে অনুসরণ করার চেষ্টা করে,কল্পনায় তাঁর মতো হতে চায়। শার্লক হোমস গল্প পড়ে এতোটাই মুগ্ধ হয়েছিলাম যে তাঁর মতো বুদ্ধিমান একজন গোয়েন্দা হওয়ার কল্পনা করতাম। যদিও বাস্তবে তা সম্ভব হয়নি! তবে ভক্ত যখন হয়েছিl তখন কিছু দায়িত্ব কর্তব্য তো রয়েছেই! তাই সহজেই পাঠক যাতে খুঁজে পায় বইগুলো এজন্য শার্লক হোমস সমগ্র pdf শেয়ার করলাম। অবশ্য বইগুলো কস্ট করে আপলোড করেছেন অন্য কেউ, হয়তো আমার মতোই কোনো গুনমুগ্ধ পাঠক। যারা ইবুুক পড়তে অভ্যস্ত তদের জন্য একটি ভালো সংগ্রহ হতে পারে এই রহস্য উপন্যাস pdf




সমকাল ব্লগ বই ডাউনলোড করার ওয়েবসাইট নয় তবে যে বইগুলো নিজে পড়েছি এবং ভালো লেগেছে শুধু এরকম বিশেষ কিছু বই নিয়েই আলোচনা হয় ব্লগের ইবুক ডাউনলোড ক্যাটাগরিতে। এখানে অন্যান্য বইয়ের পাশাপাশি কিছু জনপ্রিয় রহস্য উপন্যাস ডাউনলোড করতে পারবেন। আছে গোয়েন্দা উপন্যাস pdf, আছে থ্রিলার উপন্যাস pdf
শার্লক হোমস বা এর লেখকের বিস্তারিত পরিচিতি বা জন্ম মৃত্যুর সন তারিখ ইত্যাদি নীরস তথ্য এখানে আলোচনা করিনি।এসব বইয়ের ভূমিকাতেই বিস্তারিত রয়েছে অথবা উইকিপিডিয়াতেও খুঁজে পাওয়া একেবারেই সহজ।
শার্লক হোমস সমগ্র বা অমনিবাস ডাউনলোড pdf
শার্লক হোমস